লাকসামে ব্র্যাকের কার্যক্রম থেমে নেই - খবর তরঙ্গ
শিরোনাম :

লাকসামে ব্র্যাকের কার্যক্রম থেমে নেই



এসআই জসিম, (খবর তরঙ্গ ডটকম)

করোনা ভাইরাস আক্রান্তের শুরু থেকে লাকসামে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ব্র্যাকের কার্যক্রম থেমে নেই। দেশের সার্বিক উন্নয়নের দ্বারা ও মানুষের মান উন্নয়নে কাজ করছে ব্র্যাক।


এছাড়া ব্র্যাক লাকসাম এরিয়া অফিসের উদ্যোগে করোনা ভাইরাস কোভিড-১৯ প্রতিরোধে শহর-বন্দর ও গ্রামের প্রত্যন্ত অঞ্চলে মানুষের মাঝে সচেতনতামূলক মাইকিং, লিফলেট বিতরন, বিভিন্ন বাজার রাস্তার মোড়ে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা, মাস্ক ও হ্যান্ড গøাভস্ বিতরন এবং বিভিন্ন স্থানে জীবাণুনাশক স্প্রে, হারপিক পাউডার, সাবান বিতরন করে চলেছে।


ব্র্যাক জানায় গত তিন মাস দোকান, বাজার ব্যবসা বন্ধ থাকায় মানুষ আর্থিক সংকটে রয়েছে। এই পরিস্থিতিতে অসহায় গরীব মানুষের পাশে এসে দাড়িয়েছে ব্র্যাক। মানুষ যেন পূনরায় তাদের ব্যবসা শুরু করতে পারে তার জন্য ব্র্যাকের ক্ষুদ্র ঋণ কার্যক্রম চালু রয়েছে।


নভেল করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে (কোভিড-১৯) এর লক্ষণসমূহ, প্রতিরোধের উপায় ও ব্যক্তিগত স্বাস্থ্য সচেতনতা তৈরিতে মাঠ পর্যায়ে উপকার ভোগী ও সাধারণ জনসাধারণের মাঝে কর্মীগণ কাজ করছে এবং নিজে সচেতন হওয়া ও পরিবারের সদস্যেদের মাঝে সচেতনতা তৈরিতে কি কি করণীয় ব্র্যাক কর্মীগণ গ্রামের প্রত্যন্ত এলাকার জনসাধারণকে সচেতনতা করছেন। করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হওয়ার কত দিনের মধ্যে লক্ষণসমূহ প্রকাশ পায়, নভেল করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) এর কোনো নির্দিষ্ট চিকিৎসা রয়েছে কি? অ্যান্টিবায়েটিক কি কোভিড-১৯ এর চিকিৎসা বা প্রতিরোধে কার্যকরী,অসুস্থ হয়ে পড়লে কি করতে হবে,আক্রান্ত দেশ থেকে আসা বাংলাদেশি ও বিদেশী নাগরিকদের কি করা প্রয়োজন,সামাজিক দূরত্ব কি ও কেন দরকার?, কোয়ারান্টাইন কেন দরকার? বাড়িতে কোয়ারান্টাইন থাকতে কী করতে হবে এ সব বিষয়ে সাধারণ জিজ্ঞাসা ও উত্তর দেন এবং করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে জনসাধারণকে করমর্দন ও কোলাকুলি থেকে বিরত থাকি।


একে অন্যের কাছ থেকে কমপক্ষে ৩ ফুট দূরত্বে থাকি, হাঁচি-কাশি দেওয়ার আগে টিস্যু, রুমাল বা কনুই দিয়ে মুখ ঢাকি এবং পরে সাবান দিয়ে হাত ধুই, কিছুক্ষণ পরপর অন্তত ২০ থেকে ৩০ সেকেন্ড ধরে দুই হাত সাবান দিয়ে পরিষ্কার করি, ব্যবহারের পর টিস্যু ঢাকনাযুক্ত বিনে ফেলি ও ফেলার পর আবার হাত ধুয়ে নিই, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখি, জনবহুল স্থান, সভা-সমাবেশ এবং সামাজিক অনুষ্ঠান পরিহার করি, চোখ, নাক ও মুখ হাত দিয়ে স্পর্শ করা থেকে বিরত থাকি, নিজের জ্বর, কাশি ও শ্বাসকষ্ট থাকলে সুস্থ ব্যক্তিদের কাছ থেকে দূরে থাকি, বিদেশে থেকে ফিরলে ১৪ দিন বাড়িতে কোয়ারন্টাইনে (সবার থেকে আলাদা) থাকি এবং করোনা ভাইরাস মানুষের ফুসফুসে সংক্রমণ ঘটায়, হাঁচি, কাশি, কফ, সর্দি, থুতু এবং আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে এলে এই রোগ একজন থেকে আরেকজনে ছড়ায় এ বিষয়ে সভা করে মানুষদের জানান। ব্র্যাক কর্মকর্তারা বিদেশ ফেরত প্রবাসীদের কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিতসহ স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নির্দেশনা মেনে চলা, জনসাধারণকে সচেতনতায় নভেল ভাইরাস প্রতিরোধে আতঙ্ক নয়, চাই সচেতনতা উদ্বুদ্ধ করেন এবং কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছেন। ব্র্যাক আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক (দাবি) ভৈরব চন্দ্র বিশ^াস বলেন, “সরকারের একার পক্ষে এই ভাইরাস মোকাবেলা করা সম্ভব নয়। সরকারের পাশাপাশি সবাইকে যার যার অবস্থান থেকে এগিয়ে আসতে হবে। এলাকা ব্যবস্থাপক (দাবি) নূরুল ইসলাম এবং এলাকা ব্যবস্থাপক (প্রগতি) মোঃ জাকির হোসেন (বাদল) বলেন এই সংকটময় মূহুর্তে আমরা অসহায় মানুষের পাশে দাড়ানোর চেষ্টা করছি।


শাখা ব্যবস্থাপক দিলীপ দেবনাথ বলেন করোনা ভাইরাস সংক্রামণের শুরু থেকেই ব্র্যাক জনগনকে সচেতন করা ও সামাজিক দূরুত্ব বজায় রাখতে সবাইকে উদ্ভূদ্ধ করাসহ বিভিন্ন কার্যক্রম পালন করে আসছে। এছাড়াও দুঃসময়ে ঋণ দিয়ে তাদের পাশে থাকার চেষ্টা করছি। সহকারী শাখা ব্যবস্থাপক মোঃ গোলাম হোসেন বলেন, দেশের এই সংকটময় পরিস্থিতিতে সরকারের পাশাপাশি শ্রমজীবী মানুষের সহায়তায় এগিয়ে আসা ছাড়াও ভূল তথ্য ও গুজব প্রতিরোধেও কাজ করে চলেছে ব্র্যাক। কার্যক্রম পরিচালনা করছেন ব্র্যাক লাকসাম এলাকা ব্যবস্থাপক মোঃ নুরুল ইসলাম, এলাকা ব্যবস্থাপক (প্রগতি) মোঃ জাকির হোসেন, লাকসাম শাখা ব্যবস্থাপক দিলিপ চন্দ্র দেবনাথ, ব্র্যাক এইচআরএলএস অফিসার মোঃ হাফিজুল ইসলাম প্রমুখ।


কুমিল্লা এর অন্যান্য খবরসমূহ
লাকসাম এর অন্যান্য খবরসমূহ
পূর্বের সংবাদ