নাঙ্গলকোটে ১০ বাড়ীর চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে ময়লার ভাগাড় বানানোর অভিযোগ

কুমিল্লার নাঙ্গলকোটের রায়কোট উত্তর ইউনিয়নের শরীফপুর গ্রামে শত বছরের চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে ময়লার ভাগাড় বানানোর অভিযোগ উঠেছে ওই গ্রামের মৃত জাফর আহম্মদের স্ত্রী ও পরিবারের বিরুদ্ধে। এ ব্যাপারে গত মঙ্গলবার একই গ্রামের শফিকুর রহমান ও গ্রামের প্রায় অর্ধশত লোকের স্বাক্ষরিত একটি লিখিত অভিযোগ উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট দায়ের করা হয়েছে।


স্থানীয় ও অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, শরীফপুর গ্রামের মৃত জাফর আহম্মেদের স্ত্রী রওশনারা বেগম, মেয়ে তাছলিমা ও ছেলে রাসেদ জোর পূর্বক নিজেদের জমি দাবী করে একটি রাস্তা বন্ধ করে দেয়ায় ১০ বাড়ীর অন্তত ২০০ লোক অত্যান্ত দুর্বিষহ জীবনযাপন করছে। গত কয়েকদিন পূর্বে স্থানীয় আমেরিকা প্রবাসী সোলাইমানের নাতী অসুস্থ্য হয়ে মারা গেলে রাস্তার কারনে ওই শিশুর লাশ দাফনে তাদেরকে অনেক সমস্যায় পড়তে হয়েছে। ওই গ্রামটি কৃষি নির্ভর গ্রাম হওয়ায় গ্রামের মানুষ মাঠ থেকে ফসল আনার একমত্র পথটি বন্ধ করে দেয়ায় কৃষকদেরকে পোহাতে হচ্ছে নিদারুণ কষ্ট। এছাড়া, রাস্তাটি বন্ধ করে বাড়ীর সব ময়লা, আবর্জনা ওই স্থানটিতে ফেলানোর কারনে পাশ্ববর্তী শফিকুর রহমান ও তার পরিবার’সহ শতাধিক মানুষ মারত্মক স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে রয়েছে। তাদের এ ব্যাপারে কেউ কোন কথা বললে গ্রামবাসীকে মামলা, হামলার ভয় দেখিয়ে জিম্মি করে রেখেছে বলেও অভিযোগ করেন স্থানীয়রা।


স্থানীয় আমেরিকা প্রবাসী মো: সোলাইমান বলেন, রাস্তাটি বন্ধ করে দেয়ায় আমরা জিম্মি দশায় জীবনযাপন করছি। তাছাড়া রাস্তার কারনে গত কয়েকদিন আগে অসুস্থ হয়ে মৃত্যু হওয়া আমার নাতিকে কবরস্থ করতে চরম অসুবিধায় পড়তে হয়েছে। এবং জাফরের পরিবারের লোকদের খারপ আচরনে অতিষ্ঠ হয়ে আমার ছেলেরা বাড়ীতে না এসে চৌদ্দগ্রামে বসবাস করছে।


স্থানীয় শফিকুর রহমান বলেন, তারা রাস্তা বন্ধ করে দিয়ে ময়লার ভাগাড় বানানোয় আমার পরিবারের লোকজন’সহ এলাকাবাসী রোগ-ব্যাধি ও সংক্রমণের ঝুঁকি নিয়ে চরম কষ্টে দিনাতিপাত করছে। আমরা এ ব্যাপারে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।


অভিযুক্ত রওশনারা, তার মেয়ে তাছলিমা ও ছেলে রাসেদ এ বিষয়ে বক্তব্য দিতে রাজি হয়নি। তবে তারা সংবাদকর্মীদের উপস্থিতিতে অভিযোগকারীদের হুমকি ধমকি দিতে থাকেন।


এ ব্যাপারে নাঙ্গলকোট উপজেলা নির্বাহী অফিসার লামইয়া সাইফুল বলেন, অভিযোগের মাধ্যমে অবহিত হয়ে বিষয়টি সমাধানের জন্য স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।