লাকসামে স্ত্রীর পরকীয়ার বিচার চেয়ে দারিদ্রতার কাছে হেরে গেলেন স্বামী - খবর তরঙ্গ
শিরোনাম :

লাকসামে স্ত্রীর পরকীয়ার বিচার চেয়ে দারিদ্রতার কাছে হেরে গেলেন স্বামী



স্টাফ রিপোর্টার, (খবর তরঙ্গ ডটকম)

কুমিল্লার লাকসাম উপজেলার উত্তরদা ইউপির ৫নং ওয়ার্ড আতাকরা গ্রামে গত শনিবার রাতে কালাম মিয়ার বাড়িতে তার পুত্র দরিদ্র রিক্সা চালক মাসুদ মিয়ার স্ত্রীর পরকিয়ার ঘটনায় সামাজিক ভাবে বিচার চাইতে গিয়ে গ্রাম্য শালিশিতে দারিদ্রের কাছে উল্টো হার মানতে হয়েছে। এ নিয়ে এলাকার জনমনে নানাহ বির্তকের সৃষ্টি হয়েছে।


স্থানীয় একাধিক সুত্র জানায়, রিক্সাচালক মাসুদের ১৬/১৭ বছর সংসার জীবনে ২টি সন্তান আসলেও স্ত্রী রুবী আক্তারের সাথে তার দাম্পত্য জীবন কখনো শুখের ছিলো না। স্ত্রী ও স্বজনদের দ্বারা একাধিক বার নির্যাতিত হয়েছে।


নতুন করে ৭/৮বছর থেকে তার উপর ভর করেছে স্ত্রী রুবীর সাথে পার্শবর্ত্তী আনোয়ার নামে এক যুবকের পরকীয়া। দারিদ্রতার কারনে অসহায় মাসুদ ব্যাপারটি নিয়ে নিজের কাছেই সব সময় বিব্রত ছিল। তারপরও নিজেকে নিয়ন্ত্রনে নিতে স্ত্রীর স্বজন ও তার সমাজের লোকজনকে ব্যাপারটি অবহিত করে। কিন্তু এতে কারো কাছ থেকে কোন প্রকার সহযোগিতা না পেয়ে শুরু করে এলো-মেলো জীবন এবং বেচে নেয় মাদক খাওয়া সহ দেউলিয়া জীবন।


সুত্রটি আরো জানায়, গত শুক্রবার রাতে ৩টার দিকে প্রকৃতির ডাকে রিক্স্রা চালক মাসুদ মিয়া ঘর থেকে বের হয়ে একটু দুরে বাশ বাগানের পাশে গুন গুন শব্দ শুনতে পেয়ে একটু এগিয়ে দেখে তার স্ত্রী রুবী ও পরকীয়া প্রেমিক আনোয়ার নামে ঐ যুবক। তখন মাসুদের উপস্থিতি টের পেয়ে প্রেমিক আনোয়ার তাৎক্ষানিক ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। ঐ দিন রাতে ও পরদিন সকালে স্থানী লোকজনকে জানালে ঐদিন রাতেই এ ঘটনা গিরে মাসুদের বাড়িতে গ্রাম্য শালিশ বসে। শালিশের সার্বিক কর্মকান্ডই ছিলো নাটকীয়তা ভরা। অপর দিকে বাদী মাসুদের কোন বক্তব্যই আমলে নেয়নি শালিশদাররা। জুরি বোর্ডের সিদ্ধান্ত অনুসারে স্বাক্ষী প্রমান ছিল অনেকটাই অদৃশ্য। ফলে বিচার না পেয়ে উল্টো ফেঁসে গেলেন স্বামী মাসুদ। হায়রে – বিচিত্র আমাদের সমাজ ব্যবস্থা, বিচিত্র এলাকার শালিশদাররা, সাধু সাবধান।


বাদী মাসুদ জানায়, বিগত ১০/১২ বছর যাবৎ আমার স্ত্রী রুবীর নানাহ বিতর্কিত কর্মকান্ডে আজ আমি ক্লান্ত। কোথাও কোন সহযোগিতা পাচ্ছিনা। আজকের সামাজিক বিচারেও দারিদ্রতার কাছে হেরে গেলাম। ভাবছি আমায় ২ সন্তান নিয়ে গ্রাম ও সমাজ থেকে অনত্র চলে যাবো।


অভিযুক্ত আনোয়ার বিষয়টি নিয়ে এ ঘটনাটি তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র, মিথ্যা ও বানোয়াট বললেও এক পক্ষীয় সামাজিক বিচার জানান দিয়েছে নানাহ বির্তক। তবে স্থানীয় ইউপি মেম্বার অহিদুর রহমান ঘটনাটি জেনেও রহস্যজনক কারনে এড়িয়ে যায়।


কুমিল্লা এর অন্যান্য খবরসমূহ
লাকসাম এর অন্যান্য খবরসমূহ
পূর্বের সংবাদ