লালমাইতে ৩ পুত্র অর্থশালী তবুও প্রতিবন্ধি নাতির ভিক্ষার টাকায় চলছে বৃদ্ধা মায়ের সংসার - খবর তরঙ্গ
শিরোনাম :

লালমাইতে ৩ পুত্র অর্থশালী তবুও প্রতিবন্ধি নাতির ভিক্ষার টাকায় চলছে বৃদ্ধা মায়ের সংসার



কুমিল্লা, (খবর তরঙ্গ ডটকম)


ধর্ম ও কর্মে একজন মায়ের শেষ্ঠ অর্জন তার সন্তানেরা। সারাজীবনের সমস্ত প্রাপ্তি আর ঘাম ঝরানো শ্রম দিয়ে দিয়ে মা তার সন্তানদের আগলে রাখেন। কিন্তু জীবনের শেষ সময়ে এসে নিয়তির পরিহাসে এই মানুষ হওয়া কুলাংঙ্গার সন্তানেরা স্ত্রীর ছলছাতুরী ও প্রাচুর্যের বদৌলতে হিং¯্র জানোয়ারের মতো মাতা-পিতার প্রতি অমানুবিক হয়ে উঠে। ঘটনাটি ঘটেছে কুমিল্লার নবগঠিত লালমাই উপজেলার বেলঘর উত্তর ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ড দক্ষিণ পালপাড়া গ্রামে। সাহার বানু (৮০) নামে ওই বৃদ্ধা মা মৃত তোরার আলী কবিরাজের প্রথম স্ত্রী।


স্থানীয় একাধিক সুত্র জানায়, একটা সময় মৃত কবিরাজ তোরাব আলীর ২টি সংসার প্রাচুর্জে ভরা সুখের সংসার ছিলো। বুদ্ধিমান তোরাব আলী তার মৃত্যুর পূর্বে দুই সংসারের ছেলে মেয়েদের নামে তার স্থাবর-অস্থাবর সকল সম্পত্তি সমান ভাবে ভাগ করে দিয়ে গেলেও হঠাৎ তার মৃত্যুর পর সন্তানেরা ধীরে ধীরে হিং¯্র হয়ে উঠে এবং দুই সংসারের ছেলে মেয়েদের কাছে ১ম সংসারের বৃদ্ধা মা সাহার বানু প্রতিনিয়ত অনেকটাই বোঝা হিসাবে দীর্ঘদিন যাবৎ মানবেতর জীবন যাপন করতে থাকে। ঝুপড়ী ঘরে বিদ্যুৎহীন লাইট, ফ্যান ছাড়াই একা-একা দীর্ঘদিন যাবৎ বসবাস করে আসছেন। যে ঘরে রয়ে ছেলে ও ছেলে বৌদের পালনকৃত কবুতরের বাসা অপরিস্কার ও অগোচালো পরিবেশ বিরাজমান যা মানব জীবন যাপনে অনুপযোগী। তবে তার বড় মেয়ে রেজিয়া ও তার প্রতিবন্দি ছেলে জামাল হোসেনের ভিক্ষার টাকায় ওই বৃদ্ধার দু’বেলা খাবার জুটতো। অথচ ওই বৃদ্ধার দায়িত্ব দুই সংসারে অপরাপর কোন ছেলে মেয়ে নিতে চায়নি। গত ৭সেপ্টেম্বর সোমবার সকালে কুমিল্লা গোয়েন্দা পুলিশের এক কর্মকর্তা মামলা সংক্রান্ত কাজে তদন্তে এসে ঐ গ্রামের ৮০ বছরের বৃদ্ধা মায়ের করুণ পরিনিতি দেখে বিব্রত হয়ে পড়ে।


স্থানীয় সুত্রগুলো আরো জানায়, ওই বৃদ্ধার ১ম সংসারের খোকন মিয়া নামে ১ ছেলে এবং রেজিয়া বেগম ও মাফিয়া বেগম নামে দুই মেয়েকে পাশের বাড়িতেই বিয়ে দেয়। আর ২য় সংসারে খোরশেদ আলম কবিরাজ ও জসিম উদ্দীন নামে ২ সন্তান থাকলেও ওই বৃদ্ধা মায়ের করুন পরিনতি ঘিরে কারো কোন খেয়াল নেই অথচ তারা সকলেই অর্থশালী। পরিতাপের বিষয় মৃত তোরাব আলী কবিরাজের দুই সংসার মিলে এতগুলো ছেলে মেয়ে থাকার পরেও ১ম সংসারের ৮০ বছরের বৃদ্ধা মা সাহার বানুর এখন জিবনের শেষ প্রান্তে এসে সন্তানদের মানুষিক নির্যাতনের শিকার। অপর দিকে গতসোমবার দুপুরে এই বৃদ্ধা সাহার বানুর করুন পরিনিতি এলাকায় ফাঁস হয়ে পড়লে তাৎক্ষনিক নড়ে চড়ে উঠে স্থানীয় সকল শ্রেনী-পেশার মানুষ। খবর পেয়ে রাতেই ওই ইউপি চেয়ারম্যান আবুল খায়ের মজুমদার লোকজন নিয়ে ওই বৃদ্ধা মায়ের ঝুপরী ঘরে ডুকে হতবাক। তাৎক্ষনিক দুই সংসারের ছেলে মেয়েদের ডেকে আনলেও বৃদ্ধ মায়ের দায়িত্ব নিতে কেহই চায়নি। অবশেষে উপস্থিত সামাজিক নেতৃবৃন্ধের চাপের মুখে ২য় সংসারের বড় ছেলে কবিরাজ খোরশেদ আলম বৃদ্ধা মায়ের দায়িত্ব নেন। পরদিন খবর পেয়ে বিভিন্ন এলাকার মিডিয়া কর্মীরা ওই গ্রামে গিয়ে বৃদ্ধা মহিলার করুন পরিনতি স্ব চোখে দেখে বাকরুদ্ধ হয়ে পড়ে। মিডিয়া কর্মীদের উপস্থিতি টের পেয়ে ছেলে মেয়েরা পালিয়ে যায় এবং মুঠো ফোনে এ ব্যাপারে বার বার চেষ্টা করেও কোন বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি। তবে এলাকার সামাজিক সর্দার শাহ আলম মীর্জা ও ওয়ার্ড মেম্বার আবুল বাসার ঘটনায় সত্যতা স্বীকার করেছেন।
এ ব্যাপারে ওই ইউপি চেয়ারম্যান আবুল খায়ের মজুমদার জানান, খবর পেয়ে তাৎক্ষনিক এলকার লোকজন নিয়ে ওই বৃদ্ধার বাড়ীতে যাই। তার ব্যাপারে দুই সংসারের ছেলে মেয়েদের ডেকে আনি। কিন্তু ওই বৃদ্ধা মায়ের দায়িত্ব কোন সন্তান নিতে চায়নি। অবশেষে ২য় সংসারে বড়ছেলে খোরশেদ আলম দায়িত্ব নেয়। ওই বৃদ্ধার খাবারের জন্য তার বড় মেয়ে রেজিয়ার নামে ৩০ কেজি ভিজিডির চাউল ও ১০টাকার মূল্যের ৩০ কেজি চাউলের কার্ডের ব্যবস্থা করেছি।


কুমিল্লা এর অন্যান্য খবরসমূহ
জেলা এর অন্যান্য খবরসমূহ
পূর্বের সংবাদ
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০