জামায়াত নেতা অধ্যাপক মুজিবুর রহমান গ্রেফতারের প্রতিবাদে লাকসামে বিক্ষোভ

আজ সোমবার দুপুর ১টা৪০ মিনিটের সময় বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর  সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল অধ্যাপক মুজিবুর রহমান  গ্রেফতারের প্রতিবাদে  ও  অবৈধ যুদ্ধাপরাধ টাইবুনাল ভেঙ্গে দেওয়া দাবীতে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী ও ইসলামী ছাত্র শিবির লাকসাম পৌরসভার উদ্দ্যেগে কুমিল্লা জেলা শিবিরের অফিস সম্পাদক মহসিন কবির ও লাকসাম জামায়াতে পৌরসভা সেক্রেটারী আনোয়ার হোসেন ফারুক এর নেতৃত্ত্বে এক বিশাল বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয় । উক্ত মিছিলটি লাকসামের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। পশ্চিমগাও সমাবেশে মিলিত হয়।
সমাবেশে শিবির সেক্রেটারী শাহাদাত হোসেন এর পরিচালনায় কুমিল্লা জেলা শিবিরের অফিস সম্পাদক মহসিন কবির ও লাকসাম জামায়াতে পৌরসভা সেক্রেটারী আনোয়ার হোসেন ফারুক বক্তব্য রাখেন।
বক্তব্যে তারা বলেন, বর্তমান জালিম সরকার সম্পূর্ন অন্যায়ভাবে হয়রানি করা এবং রাজনৈতিক ফয়দা হাসিলের উদ্দেশ্যে আমাদের শিষ্য নেতাদের য্দ্ধুাপরাধ মামলা দিয়ে কারাগারে বন্দি করে রেখেছে। এবং ফ্যাসিষ্ট কায়দায় রোববার সন্ধ্যায় খুলনার জিরো পয়েন্ট থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে র‍্যাবের একটি জামায়াতে ইসলামীর  সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল মুজিবুর রহমান সহ আওয়ামী সরকার সারা দেশে ধারাবাহিকভাবে জামায়াত-শিবির নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করে আগুন নিয়ে খেলায় মেতে উঠেছে। ক্ষমতায় আসার পর থেকেই তারা বাকশালী কায়দায় জামায়াত-শিবির নেতাকর্মীদের গ্রেফতার-নির্যাতন চালিয়ে যাচ্ছে। শিবিরকে দমন করতে ন্যক্কারজনকভাবে সারা দেশে চিরুনি অভিযান চালিয়েছে। জামায়াতে ইসলামীর  সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল অধ্যাপক মুজিবুর রহমানকে  গ্রেফতার সরকারের ধারাবাহিক দমন নীতিকেই প্রমাণিত করে। নেতৃবৃন্দকে গ্রেফতারের মাধ্যমে তারা সারা দেশের আন্দোলনরত জনতাকে ক্ষুব্ধ করে তুলেছে।
তিনি আরো বলেন, অবিলম্বে গ্রেফতারকৃত সকল নেতাকর্মীকে মুক্তি না দিলে দেশব্যাপী সরকার পতনের কঠোর কর্মসূচী দেয়া হবে। একদিকে সরকার প্রহসনের বিচার চালানোর মাধ্যমে দেশের তাওহীদী জনতার হৃদয়ে আঘাত দিয়েই চলছে অপরদিকে এভাবে গ্রেফতার-নির্যাতন করে জনগণকে রাজপথে নামতে বাধ্য করেছে। জনগণ যখন রাজপথে নেমেছে তখন গ্রেফতারকৃত সকল নেতাকর্মীকে সাথে নিয়েই ঘরে ফিরবে।
নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, নির্যাতন করে আন্দোলন দমানো যাবে না। জামায়াত-শিবিরকে এ দেশের মানুষ হৃদয়ে ধারণ করেছে। কোনভাবেই মানুষ থেকে জামায়াত-শিবিরকে বিচ্ছিন্ন করা যাবে না। সরকারের উচিত হবে নিজের ভুলের ক্ষমা চেয়ে জনদাবি মেনে জামায়াতের শীর্ষ নেতৃবৃন্দকে মুক্তি দেয়া।
উক্ত সমাবেশে আরো উপস্থিত ছিলেন জামায়াতে ইসলামীর সদর উপজেলা সেক্রেটারী হাফেজ জহিরুল ইসলাম, শিবিরের সাবেক জেলা প্রকাশনা সম্পদক শহিদুল ইসলাম,  লাকসাম শহর শাখা শিবির সাবেক সভাপতি ফখরুল ইসলাম মাসুম, সাবেক শিবির নেতা সাহাব উদ্দীন,  শিবিরের লাকসাম শহর শাখার সেক্রেটারী শাহাদাত হোসেন, লাকসাম পূর্ব শাখার সভাপতি- ফয়েজুর রহমান ও সেক্রেটারী সাহাব উদ্দীন, আবু সাইদ, লোকমান হোসাইন, আমিমুল ইহসান প্রমুখ।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।