মর্যাদা ও উচ্চতর বেতন কাঠামোর দাবিতে কু’বিতে শিক্ষক সমিতির সমাবেশ ও মানব বন্ধন

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের মর্যাদা ও উচ্চতর বেতন কাঠামো প্রদানের দাবিতে শিক্ষক সমাবেশ ও মানব বন্ধন করেছে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি। মঙ্গলবার সকাল ১০.৪৫ মিনিটে প্রশাসনিক ভবনের সামনে থেকে শিক্ষকদের একটি র‌্যালি ক্যাম্পাসের বিভিন্ন পয়েন্ট প্রদক্ষিন করে কাঁঠাল তলায় এসে শেষ হয়। এর পর অনুষ্ঠিত হয় শিক্ষকদের মানব বন্ধন কর্মসূচী। মানব বন্ধনে বক্তারা শিক্ষকদের মর্যাদা ও উচ্চতর বেতন কাঠামো প্রদানের দাবি করেন।
কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারন সম্পাদক ও রসায়ন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. এ কে এম রায়হান উদ্দিন তাঁর বক্তব্যে বলেন- শিক্ষক হলেন জাতি গড়ার কারিগর, আর উচ্চ শিক্ষার ক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের গুরুত্ব অপরিসীম, কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকেরা সে অনুযায়ী মর্যাদা ও যুগোপযোগী বেতন পাচ্ছেনা। তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শিক্ষক মাসে ১৭ হাজার টাকা বেতন পান, যা কোন ভাবেই যুগোপযোগী নয়। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভি.সি. র মর্যাদা যুগ্ন সচিব থেকে সচিব পর্যায়ে উনীত করার দাবী জানান।
কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি এবং ব্যাবস্থাপনা শিক্ষা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ড. মুহম্মদ আহসান উল্লাহ তাঁর বক্তব্যে বলেন- বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় কর্মসূচীর অংশ হিসেবে আজ আমরা এই শিক্ষক সমাবেশ ও মানব বন্ধনের আয়োজন করেছি। তিনি বলেন বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে সর্বোচ্চ বিদ্যাপিঠ আর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা হলেন আদম সন্তানকে মানব সম্পদে রুপান্তরের রুপকার, অথচ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা আজ বিভিন্নভাবে অপমানিত, লাঞ্ছিত ও হামলার শিকার হচ্ছে যা কোন ভাবেই কাম্য নয়। তিনি আরো বলেন, অন্যান্য সরকারী কর্মচারীরা সকাল ৯ টা থেকে বিকাল ৫ টা পর্যন্ত অফিস করেই দায়িত¦ শেষ হয়ে যায় অথচ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের শিক্ষকতা ছাড়াও প্রশাসনিক বিভিন্ন দায়িত্ব পালন করতে হয়, রাত জেগে পরীক্ষার খাতা দেখতে হয়, এক কথায় তাদের মানবেতর জীবন যাপন করতে হয়।
তিনি আমাদের পাশ্ববর্তী দেশের বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতন কাঠামোর উদাহরন দিয়ে বলেন- শ্রীলংকায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকেরা ২ লক্ষ রুপি, পাকিস্তানে ৩ লক্ষ রুপি বেতন পায়, সেখানে জিডিপির একটা বড় অংশ শিক্ষা খাতে ব্যায় করা হয় অথচ বাংলাদেশে সে অনুপাতে বেতনও দেয়া হয়না, মর্যাদাও দেয়া হয়না।
তিনি তাঁর বক্তব্যে কয়েকটি দাবী তুলে ধরেনঃ
১.    অনতিবিলম্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভি.সি. র মর্যাদা যুগ্ন সচিব থেকে সচিব পর্যায়ে উনীত করতে হবে।
২.    বর্তমান আওয়ামিলীগ সরকারের নির্বাচনি মেনুফেষ্টু অনুযায়ী শিক্ষকদের জন্য আলাদা বেতন কাঠামো তৈরী করতে হবে।
৩.    মেধাবীদের বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হবার অনুপ্রেরনা হিসেবে সকল ধরনের সুযোগ সুবিধা ও যুগোপযোগী বেতন দিতে হবে।
৪.    জিডিপির ৮% শিক্ষা খাতে ব্যাবহার করতে হবে।
৫.    বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের নিয়োগে স্বজনপ্রীতি, রাজনীতি ও দুর্নীতি পরিত্যাগ করতে হবে।
উল্লেখ্য, বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় কর্মসূচীর অংশ হিসেবে ১৫ জানুয়ারী ২০১৩ মঙ্গল বার সকাল ১০.৪৫ মিনিটে, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের মর্যাদা ও উচ্চতর বেতন কাঠামো প্রদানের দাবিতে শিক্ষক সমাবেশ ও মানব বন্ধনের আয়োজন করে। উক্ত শিক্ষক সমাবেশ ও মানব বন্ধনে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শতাধিক শিক্ষক অংশ নেন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।