কুমিল্লার লাকসামে হরতালের সমর্থনে জামায়াতের বিক্ষোভ মিছিল

কুমিল্লার লাকসামে রায়ের বিরুদ্ধে ও হরতালের সমর্থনে আজ বিকাল ৪ টা লাকসাম পৌরসভা ও উপজেলা  জামায়াত ইসলামীর উদ্যোগে পৌরসভা সেক্রেটারী  আনোয়ার হোসেনের ফারুকী ও কুমিল্লা জেলা দক্ষিণের সেক্রেটারী আব্দুর রব ফারুকীর নেতৃত্বে এক বিশাল বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। মিছিলটি লাকসামের দৌলতগন্জ বাজারের ব্যাংক রোড থেকে শুরু হয়ে শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়কগুলো প্রদক্ষিণ শেষে সরকারী হাসপাতাল সামনে গিয়ে সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়।

মিছিলে ও সমাবেশে আরও  উপস্থিত ছিলেন, কুমিল্লা জেলা জামায়াতের শুরা সদস্য  মাওলানা এইচএম নুরুল্লাহ,লাকসাম শহর শিবিরের সভাপতি মু. শাহাদাত হোসেন প্রমুখ। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, শিবিরের জেলা স্কুল ও কলেজ কার্যক্রম সম্পাদক মু. মাঈন উদ্দিন, লাকসাম শহর সেক্রেটারী লোকমান হোসেন, উপজেলা পশ্চিম সভাপতি যোবায়ের ফয়সাল, উপজেলা পূর্ব সভাপতি ফয়েজুর রহমান, নওয়াব ফয়েজুন্নেছা সরকারি কলেজ সভাপতি আবু সাঈদ, জামায়াত নেতা সাহাবুদ্দিন হায়দার, কুমিল্লা জেলা দক্ষিণের সাবেক সাহিত্য সম্পাদক শহীদুল ইসলাম ইসলাম,লাকসাম শহর শিবিরের সাবেক সভাপতি শিবির নেতা সোহেল আহমেদ আবু বকরসহ সহস্রাধিক জামায়াত ও শিবির নেতা-কর্মী।

উল্লেখ্য,বাংলাদেশ জামায়াত ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারী জেনারলে  আব্দুল কাদের মোল্লাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়ে রায় দিয়েছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২। মঙ্গলবার সকালে এ রায় ঘোষণা করেন বিচারক ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের ট্রাইব্যুনাল। আজ রায় দেয়ার কথা জানার পর গতকালই বাংলাদেশ  জামায়াত ইসলামী হরতালের ডাক দেয়।তার প্রেক্ষিতে আজ সারাদেশে হরতাল চলছে। এর মধ্যে ট্রাইবুনাল জামায়াত নেতার বিরুদ্ধে রায় ঘোষণা করে, রায়ে জামায়াত নেতা আব্দুল কাদের মোল্লাকে যাবজ্জীন কারাদন্ড দেয়। আর এই রায় শোনার পর জামায়াত তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া ব্যাক্ত করে রায় প্রত্যাখান করে ও লাগাতার হরতালের ঘোষণা দেয়। রায়ে শোনার পর সারাদেশে জামায়াত শিবির ঝটিকা মিছিল করলে বিভিন্ন স্থানে পুলিশ,আ.লীগ ও জামায়াত-শিবিরের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।