গণমাধ্যমের কণ্ঠ রোধ করার জন্য পত্রিকার কপিতে আগুন দেয়

বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি রুহুল আমিন গাজী বলেছেন, যারা সাগর-রুনির হত্যাকারী তারাই গণমাধ্যমের কণ্ঠ রোধ করে পত্রিকার কপিতে আগুন লাগায়। আজ দেশে সাংবাদিকদের উপর নির্যাতনের খড়গ নেমেছে। প্রগতিশীল বিশ্বায়নের এ সময়ে যখন মত প্রকাশের স্বাধীনতা থাকার কথা ঠিক সেই সময়ে আজ ভিন্ন মত প্রকাশকারী গণমাধ্যম ও সাংবাদিকদের চরম নির্যাতনের শিকার হতে হচ্ছে। সাংবাদিক ইউনিয়ন কক্সবাজার এর দ্বি বার্ষিক সাধারণ সভা ও কাউন্সিল অধিবেশনে তিনি এসব কথা বলেন। গতকাল বুধবার বিকাল ৩টায় কক্সবাজার প্রেসকাব মিলনায়তনে সাংবাদিক ইউনিয়ন কক্সবাজার এর দ্বি বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি আরোও বলেন, নির্মম হত্যাকান্ডের শিকার সাংবাদিক সাগর-রুনিসহ গত ৪ বছরে আরও ১৪ সাংবাদিককে খুন করেছে দুর্বৃত্তরা। এছাড়াও নানাভাবে হামলা ও মামলার শিকার হয়েছে আরোও কয়েক’শ সাংবাদিক। পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে এ ধরণের অত্যাচার কোনভাবেই মেনে নেওয়া যায়না উল্লেখ করে সকল সাংবাদিক হত্যার বিচারের দাবীতে সোচ্চার হতে সাংবাদিক ইউনিয়ন কক্সবাজারের প্রতি আহ্বান জানান। তিনি আরও বলেন, একটি চক্র সাংবাদিকদের মধ্যে ফাটল সৃষ্টি করে সুবিধা আদায় করতে চায়। মত প্রকাশের ভিন্নতাকে দৃশ্যত বিভক্তিতে রুপ দিয়ে তারা ফায়দা লুঠার চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে বলে জানান তিনি। শাহবাগে দৈনিক সংগ্রাম, আমারদেশ, নয়াদিগন্ত, দিনকাল, ইনকিলাব, ইসলামিক টি.ভি ও দিগন্ত টি.ভি’র বিরুদ্ধে যেভাবে বিষেদাগার করা হচ্ছে এবং এসকল পত্রপত্রিকার কপিতে আগুন লাগানো হচ্ছে তা ফ্যাসিবাদেরই বহি:প্রকাশ। মাননীয় প্রধান মন্ত্রীও যখন এধরণের অন্যায় আবদারে ও আচরণ সহমত জানান তখন দেশে বিরুধীমত বলে আর কিছুই থাকেনা। বর্ষীয়ান সংগ্রামী সাংবাদিক আমারদেশ’র সম্পাদক মাহমুদুর রহমানের বিরুদ্ধে সরকার উঠে পড়ে লেগেছে উল্লেখ করে বলেন, তাকে আজ দীর্ঘ সময় ধরে অবরুদ্ধ করে রাখা হয়েছে। এটি কোনভাবেই গণতান্ত্রিক আচরণ হতে পারে না। হলুদ সাংবাদিকতার প্রতি কড়া সমালোচনা ও কঠোর হুশিয়ারি উচ্চারণ করে তিনি বলেন, যারা সত্য কথা বলতে নারাজ বা যাদের মন মগজ মিথ্যায় পরিপূর্ণ থাকে আজ তাদের মুখোশ উন্মোচন করার সময় এসেছে। অচিরেই তাদের মুখোশ উন্মোচন করে জাতির সামনে তুলে ধরতে সত্যাশ্রয়ী সাংবাদিকদের আহ্বান জানান তিনি। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক শওকত মাহমুদ বলেন, যে দেশে ভিন্নমত, বিরুধীমত বা মত প্রকাশের স্বাধীনতা থাকে না সেদেশে গণতন্ত্রই থাকে না। সেটি তখন ফ্যাসিবাদ স্বৈরাচারে রুপ নেয়। সাধারণ সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন প্রবীন সাংবাদিক আতাহার ইকবাল, আমিনুল ইসলাম চৌধুরী, সিনিয়র সাংবাদিক মমতাজ উদ্দিন বাহারী। উপস্থিত ছিলেন সিনিয়র সাংবাদিক প্রেসকাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও দৈনিক সৈকত এর সম্পাদক মাহাবুবুর রহমান, সিনিয়র সাংবাদিক দৈনিক সংগ্রাম জেলা প্রতিনিধি কামাল হোসেন আজাদ, সিনিয়র সাংবাদিক ইকরাম চৌধুরী টিপু, সিনিয়র সাংবাদিক নুরুল ইসলাম হেলালী। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি জনাব রুহুল আমীন গাজী। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক শওকত মাহমুদ। সাধারণ সভা ও কাউন্সিলের সভাপতির বক্তব্য রাখেন কক্সবাজার প্রেসকাবের সাবেক সভাপতি ও সাংবাদিক ইউনিয়ন কক্সবাজারের সভাপতি বদিউল আলম। কাউন্সিলে সাংবাদিক ইউনিয়ন কক্সবাজারের এবারও সভাপতি নির্বাচিত হন বদিউল আলম এবং সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন জি.এম আশেক উল্লাহ। সাংবাদিক ইউনিয়ন কক্সবাজারের সকল সদস্যের উপস্থিতিতে কাউন্সিল অধিবেশন সম্পন্ন হয়।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।