শত শত একর জমির চাষাবাদ অনিশ্চিত টেকনাফে বাঁধ কেটে পানি লুট

সেচের বাঁধ কেটে দিয়ে পানি লুট করার চাঞ্চল্যকর অভিযোগ পাওয়া গেছে। টেকনাফ উপজেলার হোয়াইক্যং ইউনিয়নের কেরুনতলীতে ১১মার্চ ভোররাতে ঘটেছে এ ঘটনা। এতে শত শত একর জমির বোরো চাষাবাদ ও মৌসুমী ফসলের উৎপাদন অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। ন্যাক্কারজনক এই ঘটনার প্রতিবাদে ক্ষতিগ্রস্ত বিক্ষুব্দ শত শত কৃষক টেকনাফ-কক্সবাজার মহা সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছে। তবে স্থানীয় নেতৃবৃন্দ পরিস্থিতির অবনতি হতে দেয়নি। হোয়াইক্যং পুলিশ ফাঁড়ির আইসি সাব-ইন্সপেক্টর(এসআই) বখতিয়ার উদ্দীন চৌধুরী সন্ধায় কেরুনতলীর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে বলে জানিয়েছেন। এদিকে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের পক্ষে কেরুনতলী গ্রামের মৃত হাজী আব্দুর রশিদের পুত্র সাবেক মেম্বার আহমদ হোসেন দরখাস্তকারী হয়ে ৩জনকে অভিযুক্ত করে টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট অভিযোগ দাখিল করেছেন। এতে অভিযুক্তরা হচ্ছে- উখিয়া উপজেলার পালংখালী পশ্চিম ফারিরবিল গ্রামের মৃত খলিলুর রহমানের পুত্র মোখতার আহমদ, মোঃ আনোয়ারের পুত্র আবুল কালাম ও মোঃ হানিফের পুত্র বদি আলম। টেকনাফের ভারপ্রাপ্ত ইউএনও সহকারী কমিশণার (ভূমি) আব্দুল্লাহ আল মামুন তদন্ত পূর্বক জরুরী ভিত্তিতে ব্যবস্থা নিতে উপজেলা কৃষি অফিসার এবং পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছেন। এঘটনায় এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।

স্থানীয় বাসিন্দা ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি নাজির হোছাইন চৌধুরী, ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক রশিদ আহমদ, রমজান আলী, আবুল কাসেম, মনছুর আলী, মোঃ হোছাইন, ফজল কবির, সামসু, আশকর আলী, আব্দুস শুকুর, আব্দুর রহমানসহ চরম হতাশাগ্রস্থ কৃষকগণ জানান-কেরুনতলী, গিলাতলী, কাটাখালী এলাকার কয়েক শত কৃষক কেরুনতলী ছড়ায় বাঁধ দিয়ে প্রতি বছর দুই থেকে আড়াই শত একর জমিতে বোরো মৌসুমে চাষাবাদ করে আসছিল। এবছরও একই ভাবে বোরো ধানের পাশাপাশি বিভিন্ন ফসলের চাষাবাদ করেছিল। ১১মার্চ ভোর রাতে অভিযুক্তগণ মুখোশ পরে সাঙ্গপাঙ্গসহ অস্ত্র শস্ত্রে সজ্জিত হয়ে এসে ৪টি বাঁধ-ই কেটে দিয়েছে। এর ফলে এলাকার শত শত একর জমির ফসল এবং চাষাবাদ চরম ভাবে অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। অভিযুক্তরা গরীব কৃষকদের চরম ক্ষতি এবং বর্তমান সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করার উদ্দেশ্যে এহেন জঘন্য কাজ করেছে।

ব্যাপারে জরুরী ভিত্তিতে আইনগত ব্যবস্থা না নিলে এলাকার গরীব কৃষকগণের মারাত্মক অপূরণীয় ক্ষতি হওয়ার আশংকা রয়েছে। স্থানীয় লোকজন জানান- অভিযুক্তরা বাঁধ কেটে দিয়ে প্রবাহিত পানি নিজেরা ব্যবহার করতে এভাবে সন্ত্রাসী কায়দায় বাঁধ কেটে পানি লুট করেছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।