ফেনী সদর হাসপাতালে র‌্যাবের ঝটিকা অভিযান আটক ৫ ॥ ছাড় পেতে তদবির

ফেনী আধুনিক সদর হাসপাতালে হঠাৎ ঝটিকা অভিযান চালায় র‌্যাপিড এ্যাকশান ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব-৭)। রবিবার দুপুরে জরুরী বিভাগের সামনে থেকে ৫ দালালকে গ্রেফতার করা হয়।

হাসপাতাল সূত্র জানায়, ডিএডি মো: ফজলুল হকের নেতৃত্বে র‌্যাব সদস্যরা সদর হাসপাতালে অভিযান চালায়। এসময় ঘোরাফেরাকালে সন্দেহভাজন ৫ ব্যক্তিকে আটক করে। আটককৃতরা কেউই হাসপাতালের কর্মচারী নয় নিশ্চিত হয়ে তাদেরকে ফেনী মডেল থানায় হস্তান্তর করে র‌্যাব। এ ঘটনায় র‌্যাবের পক্ষ থেকে একটি সাধারণ ডায়েরী করা হয়। আটককৃতরা হল- শহরতলীর ফলেশ্বরের মাহমুদুল হকের ছেলে শামীম, (আল-আমীন ফার্মেসী), বিরিঞ্চির বাচ্চু মিয়ার ছেলে সোহাগ (সেবা মেডিকেল হল), ধর্মপুর জোয়ার কাছাড় গ্রামের নজির আহম্মদের ছেলে মো: রহমান ওরফে সুমন (ফেমাস মেডিকেল হল) ও একই এলাকার আবদুস সোবহানের ছেলে আজিম (ফেয়ার মেডিকেল হল), আমিনুল হকের ছেলে মো: ওমর আলী (বাবলু মেডিকেল হল)।

জানা গেছে, জেলার প্রধান এই হাসপাতালকে ঘিরে গড়ে উঠেছে দালাল চক্র। রোগী দেখা মাত্রই কি সমস্যা, কেন আসছেন, কার কাছে আসছেন, কোন ডাক্তার দেখাবেন এমন প্রশ্নেই বিড়ম্বনায় পড়তে হয় রোগীদের। দালালরা রোগীদের কিছু বুঝে উঠার আগেই ‘এখানে ভালো পরীক্ষা-নিরীক্ষা হয় না, মেশিন নষ্ট’ এসব বলে ব্যবস্থাপনাপত্র টান দিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা দেখলেই বাইরে অপেক্ষমান রিক্সা-সিএনজি অটো রিক্সা করে ক্লিনিকে নিয়ে যান। বাইরে অপেক্ষমান বিভিন্ন ক্লিনিকের এ্যাম্বুলেন্সের ড্রাইভাররাও রোগী নিতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। এতে করে দূরদূরান্ত থেকে সাধারণ রোগীরা আসলেও তারা নানাভাবে হয়রানির শিকার হন। দালালদের প্রলোভনে পড়ে প্রাইভেট ক্লিনিকে যেতে বাধ্য হন। এক্ষেত্রে হাসপাতালের অসাধু কর্মচারীদেরও সহযোগিতা রয়েছে বলে জানা গেছে।

ফেনী মডেল থানার সেকেন্ড অফিসার এস আই ইকবাল বাহার চৌধুরী জানান, তাদেরকে ৫৪ ধারায় গ্রেফতার দেখানো হয়েছে।

মিলন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।