নানা সমস্যায় জর্জরিত ছাগলনাইয়া শিশু পরিবার

আবাসন, স্যানিটেশন ও নিরাপত্তাসহ নানা সমস্যায় জর্জরিত ছাগলনাইয়া শিশু পরিবার। সরকারী এই শিশু পরিবারটি সরকারী সাহায্য ছাড়া আর কোনো সুযোগ-সুবিধা বা সহায়তা পান না। অভিযোগ রয়েছে- সরকারী সুযোগ-সুবিধা পর্যাপ্ত নয়। এই শিশু পরিবার নিয়ে পত্র-পত্রিকায় অসংখ্য সংবাদ পরিবেশনের পরও এর কোনো অগ্রগতি নেই। এ পরিবারটিকে ঘিরে রয়েছে অসংখ্য দুর্ভোগ, দুর্গতি ও ভোগান্তি। এ দুর্ভোগ ও ভোগান্তিকে সাথে নিয়ে বেড়ে ওঠছে এতিম ও অসহায় শিশুরা। তাদের এই দুর্ভোগ ও ভোগান্তি লাঘব করতে সরকারের পাশাপাশি সমাজের বিত্তবানদেরও এগিয়ে আসার আহ্বান জানান সংশ্লিষ্টরা।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, ছাগলনাইয়া শিশু পরিবারে পাঁচটি পরিবার রয়েছে। পাঁচটি পরিবারের ১৭৫ জন এতিম-অসহায় শিশু-কিশোর রয়েছে। শিশু পরিবারের সন্তানদের সরকারিভাবে থাকা খাওয়া ও পড়ালেখার পাশাপাশি ঈদে দুই সেট পোশাক দেওয়া হয়।
ছাগলনাইয়া শিশু পরিবারটি তিন একর জায়গার মধ্যে স্থাপিত। তবে চারপাশে না থাকার কারণে অবাধে গরু, ছাগল ও লোকজন চলাফেরা করে। যে কারণে তাদের নিরাপত্তা নিয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ উদ্বেগ প্রকাশ করেন। ছাগলনাইয়া শিশু পরিবারের কিছু কক্ষের দরজা জানালা ভাঙ্গা ও নড়বড়ে অবস্থা। কক্ষগুলোতে বৈদ্যুতিক অবস্থাও ভালো নয়। রুম পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা ও কাপড় চোপড় ধোয়ার কাজগুলো ওরা নিজের কাজ নিজে করতে হয়।
সূত্রে জানা গেছে, প্রত্যেক রুমের ফ্যান লাইট গুলো ঠিকমত চালু নেই। কোনোটার তার ছিড়ে গেছে বা কোনোটা বিকল ও অকেজো হয়ে রয়েছে। ফলে রাতে শিশুদের পড়তে ও ঘুমাতে বেশ ভোগান্তি পোহাতে হয়।  তাদের বিছানা, বেডসীট, বালিশ ও বালিশের কভার অপরিষ্কার অপরিচ্ছন্ন কিংবা ছিড়া।
তাদের বাথরুমগুলোর পয়ঃনিষ্কাষণ ব্যবস্থা নাজুক, ফ্লোরে ময়লা পানি জমে থাকে। অস্বাভাবিক দুর্গন্ধ ও ব্যবহারের অুনপযোগী হয়ে পড়েছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে- তাদের দেখভাল করার জন্য আটজন ভাইয়ার পদ থাকলেও রয়েছেন মাত্র দুইজন ভাইয়া।
ছাগলনাইয়া শিশু পরিবারের তত্ত্বাবধায়ক ও উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা আফতাব উদ্দিন চৌধুরী জানান, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পক্ষ থেকে শিশু পরিবারের সন্তানদের বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা দেওয়া হতো। বর্তমানে সে সুযোগটিও নেই। এছাড়া শিশু পরিবারের এতিম শিশুদের জন্য সরকারি সহায়তা পর্যাপ্ত নয় জানিয়ে তিনি ওইসব দুঃস্থ শিশুদের সহায়তায় সমাজের বিত্তবানদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।