রাজবন্ধীদের মুক্তি না দিলে কক্সবাজার অচল করে দেয়া হবে -জেলা জামায়াত

কক্সবাজারে মহেশখালী দক্ষিণের আমীর জাকের হোসাইন ও সদরের বৃহত্তর ঈদগাঁও সাংগঠনিক উপজেলার সভাপতি লায়েক বিন ফাজেলকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সূত্রে জানা যায়, ঈদগাঁও সাংগঠনিক উপজেলা ছাত্রশিবির সভাপতি লায়েক বিন ফাজেলকে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ঈদগাঁও পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের আইসি মনজুরের নেতৃত্বে একদল পুলিশ বাজারের দণি পার্শ্ব হতে আটক করে। একইদিন রাত ১০টার দিকে সদর মডেল থানার সাদা পোষাকধারী একদল পুলিশ উপকূলীয় জনপদ মহেশখালী (দণি) উপজেলা জামায়াতের আমীর জাকের হোসাইনকে কক্সবাজার শহরের লালদীঘি এলাকা থেকে গ্রেফতার করে। অপারেশন অফিসার শাহেদ উদ্দিন জানান, মহেশখালী থানা পুলিশের নির্দেশনাক্রমে জাকের হোসাইনকে আটক করা হয়েছে। বর্তমানে তিনি পুলিশ হেফাজতে রয়েছেন। এদিকে জেলা জামায়াত নেতৃবৃন্দ এক বিবৃতিতে অন্যায়ভাবে গ্রেফতারের তীব্র নিন্দা ও আটককৃত নেতাদের নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানিয়েছেন। জামায়াতে ইসলামী মহেশখালী উপজেলা দক্ষিণের আমীর জাকের হোসাইন ও ইসলামী ছাত্রশিবিরের ঈদগাঁও শাখার সভাপতি লায়েক বিন ফাজেলকে গ্রেফতার করার প্রতিবাদে যৌথ বিবৃতি প্রদান করেছেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও কক্সবাজার জেলা আমীর মুহাম্মদ শাহজাহান, নায়েবে আমীর মাওলানা মোস্তাফিজুর রহমান, সেক্রেটারী জি.এম রহিমুল্লাহ, ঈদগাঁও উপজেলা আমীর ডাঃ আমির সুলতান, সেক্রেটারী মাওলানা ছলিমুল্লাহ জিহাদী। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, ফ্যাসিবাদী আওয়ামী সরকার বিরোধী দলের বিরুদ্ধে হাজার হাজার মিথ্যা মামলা দিয়ে গ্রেফতারের মাধ্যমে মতাকে দীর্ঘস্থায়ী করতে চায়। গণহত্যাকারী আওয়ামী সরকার আদর্শিক ও রাজনৈতিক মোকাবেলা করতে ব্যর্থ হওয়ায় হাজার হাজার মিথ্যা মামলা দিয়ে গ্রেফতারের মাধ্যমে জামায়াত-শিবিরকে দমনের পথ বেছে নিয়েছে। গ্রেফতার করে জামায়াত-শিবিরকে নেতৃত্ব শূণ্য করার আওয়ামী ষড়যন্ত্র এই দেশে ছাত্রসমাজ কখনো সফল হতে দেবে না। গণহত্যা ও গ্রেফতার-নির্যাতন বন্ধ করে জামায়াত নেতা জাকের হোসাইন ও শিবির নেতা লায়েক বিন ফাজেলসহ কক্সবাজারের সকল রাজবন্ধীদের অবিলম্বে মুক্তি দিতে হবে। অন্যথায় নেতৃবৃন্দকে মুক্তির দাবিতে কঠোর কর্মসূচী মাধ্যমে পর্যটন নগরী কক্সবাজারকে অচল করে দেওয়া হবে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।