কক্সবাজার জেলার শীর্ষে চকরিয়া কোরক বিদ্যাপীঠ ॥ শিক্ষার্থীদের বাঁধভাঙ্গা উল্লাস

বিজ্ঞান-৬৯ ব্যবসায়-২৭সহ এ+৯৬জন
কক্সবাজার জেলার স্বনামধন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ১৯৯০সালে শিক্ষার হার সম্প্রসারণ ও মানোন্নয়নের লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠিত চকরিয়া কোরক বিদ্যাপীঠ এস.এস.সি পরীক্ষা’১৩ইং এর ফলাফলে এ+ প্রাপ্তির দিক দিয়ে দ্বিতীয় হলেও পাশের হারে জেলার শীর্ষ স্থান অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে। সদ্য প্রকাশিত ফলাফলে বিজ্ঞান ৬৯ জন ও ব্যবসায় শিক্ষায় ২৭জন এ+সহ ২৯৮জন কৃতিত্বের সাথে উত্তীর্ণ হয়। এতে বিজ্ঞান বিভাগে ১৪২জনের মধ্যে এ+৬৯, এ ৬৬, এ- ৫, বি ১জন। ব্যবসায় শিক্ষায় ১৫০জনের মধ্যে এ+২৭, এ ৮৪, এ- ২৭, বি ৮, সি ৩জন। মানবিকে ৮জনের মধ্যে এ ৩, এ-৪ ও বি ১জন। যার পাশের হার ৯৯.৩৩%।
ঈর্ষন্বিয় ফলাফলে কোরক বিদ্যাপীঠের প্রধান শিক্ষক আলহাজ্ব নুরুল কবির বলেন, সকল শিক্ষকবৃন্দের আন্তরিক প্রচেষ্টা ও পরিচালনা কমিটির পরিকল্পনা অনুযায়ি সঠিক পরিচর্যার মাধ্যমে পাঠদান করায় অভিভাবকদের কাছে কৃতজ্ঞ। এ জন্য তিনি মহান আল্লাহ্র কাছেও শোকরিয়া জ্ঞাপন করেন।
বিদ্যাপীঠ পরিচালনা কমিটির সভাপতি হাজী বশিরুল আলম জানান, এ প্রতিষ্ঠান থেকে ৩০০জন পরীক্ষার্থী অংশ নেয় এস.এস.সি পরীক্ষা’১৩ইং এ। এতে একজন পরীক্ষার্থী সামাজিক দুর্বৃত্তায়নের শিকার হয়ে নিখোঁজ থাকায় পরীক্ষায় অংশ নিতে পারেনি। অপর একজন ছাত্রী (নওশীন সাজনীন) অষ্টম শ্রেণীতে স্কলারশীপ পেয়েছে দাবি করে বলেন, এ শিক্ষার্থীর অনাকাংখিত বোর্ড ত্রুটি হয়েছে। ফেল করার বিষয়টি প্রশ্নবিদ্ধ। না হয় এস.এস.সি ফলপ্রার্থী নওশীন সাজনীনও এ+ নিয়ে সবার মুখ উজ্জল করতো। ওই ছাত্রীর চ্যালেঞ্জের বিষয়টি নিয়মানুযায়ী পূণঃ মূল্যায়নের জন্য বোর্ড কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন জানাবেন বলেও তিনি তাঁর এক প্রতিক্রিয়ায় সাংবাদিকদের জানান। সর্বোপরী কৃতিত্বের স্বাক্ষর রাখা এ প্রতিষ্ঠানই জেলার শীর্ষে রয়েছে বলে তিনি দাবি করেন।
এদিকে ফলাফল ঘোষণার পরপর শিক্ষক-শিক্ষিকা, অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের সাথে বাঁধভাঙ্গা উল্লাসে ফেটে পড়ে পরিচালনা কমিটি অভিভাবক সদস্য আলহাজ্ব মোঃ হায়দার আলী। এসময় তাদের চোখে মুখে আনন্দের বান। জীবনের প্রথম ধাপে বিজয়ী ওরা। তাই উপচে পড়া উচ্ছ্বাসে তাৎক্ষণিক তরুণ এ অভিভাবক প্রতিনিধির নেতৃত্বে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনায় বিপুল শিক্ষার্থীদের নিয়ে বের হয় আনন্দ মিছিল। তুমুলভাবে বাদ্যযন্ত্র বাজিয়ে শুরু হওয়া আনন্দ মিছিলটি পৌর শহরের চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের চিরিঙ্গা প্রদক্ষিণ করে। একপর্যায়ে অভিভাবক প্রতিনিধি হায়দার আলীর তত্বাবধানে আনন্দ মিছিলটি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জয়নাল আবদিন এর সাথে সৌজন্য সাক্ষাত শেষে বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে মিলিত হয়।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।