বাংলাদেশী নয় ভারতীয়কে পিটিয়ে মারল বিএসএফ

শনিবার সকালে চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলার মেদেনীপুর সীমান্তের ৬৩ নং মেইন ও ৬ নং সাব পিলারের কাছে কাঁটাতারের পাশে স্বরূপ শিকারী নামে ১৩ বছরের এক ভারতীয় কিশোরের মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখা গেছে। বেলা দুটার দিকে ভারতের কেষ্টগঞ্জ থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে মৃতদেহ উদ্ধার করে নিয়ে গেছে বলে জানা গেছে। তাকে বাংলাদেশী ভেবে বেদম পেটায় বিএসএফ। এক পর্যায়ে সে মারা যায়। সীমান্তের একটি সূত্র জানায়, ভারতের কেষ্টগঞ্জ থানার ধরমপুর গ্রামের উতাঙ্ক শিকারীর ছেলে স্বরূপ শিকারী (১৩) শুক্রবার রাত ১২টার দিকে প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে বাড়ির বাইরে বের হয়। এ সময় ভারতের টুঙ্গিপাড়া বিএসএফ ক্যাম্পের সদস্যরা তাকে বাংলাদেশী গরু ব্যবসায়ী ভেবে আটক করে। পরে বিএসএফ সদস্যরা তাকে ক্যাম্পে নিয়ে অমানুষিক নির্যাতন চালায়। নির্যাতনের এক পর্যায়ে তার মৃত্যু হয়।

রাত দুটার দিকে ক্যাম্পে নির্যাতনের সময় অনেকে স্বরূপ শিকারীর চিৎকার শুনেছেন।
বিজিবির মেদেনীপুর ক্যাম্পের হাবিলদার আবদুল লতিফ জানান, তারা রাত দুটার দিকে ৬৩ নং পিলারের বিপরীতে ভারতীয় অংশে তিনি চিৎকার শুনেছেন। এরপরই তারা সীমান্তে টহল জোরদার করেন।
এক পর্যায়ে রাত চারটার দিকে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ বিষয়টি ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে ভারতীয় নাগরিকের মৃতদেহ বাংলাদেশের অভ্যন্তরে ফেলে রাখার চেষ্টা করে এবং হত্যাকাণ্ডের ঘটনাটি বিজিবির ঘাড়ে চাপানোর অপচেষ্টা চালায়। বিজিবির বাধার কারণে বিএসএফ তা করতে পারেনি।


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।