রায়পুরে আবারও ৪ প্রবাসির বাড়িতে দুর্ধর্ষ ডাকাতি: মহিলাসহ ৩জন গুলিবিদ্ধ

লক্ষীপুরের রায়পুর উপজেলার সাইচা গ্রামে বুধবার (১৫ মে) রাত ৩টায় আবারও ৪ প্রবাসির বাড়িতে দুর্ধর্ষ ডাকাতি হয়েছে। এ সময় সশস্র মুখোশপরা ডাকাতদল নগদ টাকা, স্বর্ণলংকারসহ প্রায় ২৫ লক্ষ টাকার মালামাল লুটে নিয়েছে। এতে  বাধা দেওয়ায় মহিলাসহ ২ গৃহকর্তাকে গুলিবিদ্ধ ও একজনকে  কুপিয়ে মারাতœক জখম করেছে। আহতদের উদ্ধার করে নোয়াখালি জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
হাসপাতালে চিকিৎসাধীন গুলিবিদ্ধরা হলেন- বামনী ইউনিয়নের সাইচা গ্রামের প্রবাস ফেরত কলিম মিয়া ও তার স্ত্রী কুলছুমা বেগম। তাদের হাতে , পায়ে ও কমোরে গুলিবিদ্ধ হয়। ও একই এলকার প্রবাস ফেরত মো: সফিউল্যা। তাকে মাথায়, হাতে ও পায়ে কুপিয়ে মারাতœক জখম করে।
বামনী ইউনিয়নের আ’লীগ সভাপতি তোপাজ্জল হোসেন মেম্বার জানান, রাত ৩টায় ১০-১২ জনে মুখোশ পড়া সশস্র ডাকাত দল  সাইচা গ্রামের মুন্সি বাড়ির  কাতার প্রবাস ফেরত গোলম মোস্তফা বিল্ডিংয়ের কলাপসিবল গেট ভেঙ্গে ভিতরে ডোকে। এই সময় ঘরের সবাইকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে নগদ ৪২ হাজার  টাকা, ১০ ভরি স্বর্ণ সহ আলমারিতে রাখা প্রায় ৭ লক্ষ টাকার মালামাল লুটে নেয়। একই বাড়ির সৌদি প্রবাস ফেরত মো: সফিউল্যা ঘরে হানা দিয়ে নগদ ১ লক্ষ টাকা ও ৫ ভরি স্বর্ণ সহ ৪লক্ষ টাকার মালামাল লুটে নেয়। এ সময় বাধা দিলে ডাকাতরা তাকে কুপিয়ে মারাতœক জখম করে। পর্শবর্তী আনাজী বাড়ির সৌদি প্রবাস ফেরত মো: শাহাজানের ঘরে হানা দিয়ে নগদ ১ লক্ষ টাকা ও ৫ ভরি স্বর্ণ সহ ৪লক্ষ টাকার মালামাল লুটে নেয়। এ সময় তাদের চিৎকার শুনে বাড়ির লোকজন  এগিয়ে আসলে তারা কয়েক  রাউন্ড গুলি ছুড়ে। এই সময় কলিম মিয়া ও তার স্ত্রী কুলসুমা বেগম গুলিবিদ্ধ হয়। একই রাতে  পার্শবর্তী চান মিয়া বেপারী বাড়ির সৌদি প্রবাস ফেরত ব্যবসায়ী আব্দুল মতিনের ঘরে হানা দিয়ে নগদ ২লক্ষ টাকা ও ৫ ভরি স্বর্ণ সহ ৫লক্ষ টাকার মালামাল লুটে নেয়। এছাড়াও ওই একই রাতে কাজীরদিঘীরপাড় হামছাদি এলাকার হাডুয়া বাড়ির ২ প্রবাসির বাড়িতে হানা দিয়ে ১০লক্ষ টাকার মালামাল লুটে নিয়েছে । তবে ওই পরিবারের লোকজনের নাম পাওয়া যায়নি। আহতদেরকে লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে  কর্তব্যরত ডাক্তার তাদেরকে নোয়াখালি সদর হাসপাতালে প্রেরন করেছেন।
ওই হাসপাতালে যোগাযোগ করা হলে আহতদের পরিবার ডাক্তারের উদ্ধৃতি দিয়ে বলেছেন, কলিম মিয়া ও তার স্ত্রী কুলসুমার অবস্থা আশংকাজনক। তাদেরকে ঢাকায় নেয়া হতে পারে।
বামনী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো: সালেহ আহাম্মদ বলেন, প্রতি রাতে এই এলাকা চিন্তাই ও ডাকাতির ঘটনা ঘটছে। ত প্রতিরোধে গ্রামবাসী রাত জেগে পাহাড়া দিলেও তা রোধে সম্ভব হচ্ছে না।  প্রবাসীর স্বজনদের চিৎকার শুনে বাড়ির লোকজন এগিয়ে গেলে ডাকাতরা কয়েক রাউন্ড গুলি ছুড়ে। এই সময় ২ জনকে গুলিবিদ্ধ ও ১জনকে কুপিয়ে মারাত্বক জখম করে। পুলিশকে ঘটনাটি জানানো হয়েছে।
রায়পুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবুল কাশেম চৌধুরী জানান, ডাকাতি ও গুলিবিদ্ধ হওয়ার ঘটন  শুনে ২ এস আইকে ঘটনাস্থল পাঠানো হয়েছে। ডাকাতদের গ্রেফতারে ও লুন্ঠিত মালা-মাল উদ্ধারে অভিযান চলছে। আমাদের পুলিশের জনবল কম থাকায় ও একটি গাড়ি দিয়ে অভিযান চালানো কষ্টকর হচ্ছে।


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

 

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।