রায়পুরে স্বামী-ভাসুরের নির্যাতনে গৃহবধু হাসপাতালে কাতরাচ্ছে

লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার চরবংশী গ্রামে রোববার (১৯ মে) বিকলে যৌতুকের দাবিতে স্বামী ও ভাসুরের নির্যাতনে গৃহবধূ রোকেয়া বেগম (৩৬) হাসপাতালের বিছানায় কাতরাচ্ছে। তিনি ওই এলাকার রাজ্জাক বেপারির মেয়ে।
এ ঘটনায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত লক্ষ্মীপুর চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে যৌতুক ও নারী নির্যাতন আইনে মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে নির্যাতিত পরিবার সূত্রে জানা যায়।
হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রোকেয়া বেগম জানান, প্রায় ২০ বছর আগে তাদের পার্শ্ববর্তী গ্রামের আক্কু মুন্সির ছেলে ব্যবসায়ী মনির মুন্সির (৪০) সাথে তাদের বিয়ে হয়। কয়েকদিন আগে ব্যবসার জন্য ধার-দেনা করে মনিরকে নগদ ৫০ হাজার টাকা দেয়া হয়। রোববার আরো ৫০ হাজার টাকা বাবার কাছ থেকে এনে দেয়ার জন্য মনির ও তার বড় ভাই রহমত আলী রোকেয়াকে চাপ সৃষ্টি করে। এতে রাজি না হওয়ায় তারা রোকেয়াকে লাঠি ও রড দিয়ে পিটিয়ে শারীরিক নির্যাতন চালিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যার চেষ্টা চালায়। এসময় রোকেয়া চিৎকার দিয়ে অজ্ঞান হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। পরে বাড়ির লোকজন এসে এ ঘটনায় রোকেয়ার পরিবারকে জানিয়ে হাসপাতালে ভর্তি করে। তাদের সংসারে দুই ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে।
এ ব্যাপারে অভিযুক্ত মনির মুন্সি ও রহমত আলীর সাথে একাধিকবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে পাওয়া যায়নি। তবে তাদের পরিবারের লোকজন রোকেয়া ও মনিরের সাথে পারিবারিক কথা কাটাকাটি হয়েছে। তাকে নির্যাতন করা হয়নি বলে তারা দাবি করেন।
রায়পুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবুল কাশেম চৌধুরী জানান, এ ঘটনা সম্পর্কে তিনি অবগত নন। তবে নির্যাতিত পরিবার থানায় আইনের আশ্রয় নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।