রফিকুল ইসলাম মিয়ার বাড়িতে দাফনের সরঞ্জাম, কুমিল্লা জুড়ে তোলপাড়

কুমিল্লার মুরাদনগরে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য কারাবন্দী ব্যরিষ্টার রফিকুল ইসলাম মিয়ার পৈত্রিকবাড়ীতে শুক্র, শনি- পরপর দু’দিন কাফনের কাপড় পাঠিয়েছে দুর্বৃত্তরা। কাফনের সাথে একজন মুসলিম ব্যক্তিকে দাফন করতে আনুষাঙ্গিক যা যা দরকার তার সব কিছুই ছিলো নির্ধারিত প্যাকেটে।

এ নিয়ে ব্যাপক তোলপাড় চলছে কুমিল্লা জুড়ে।

ঢাকায় বসবাসরত ব্যরিষ্টার রফিকুল ইসলাম মিয়ার স্ত্রী অধ্যাপিকা শাহিদা রফিক মুঠোফোনে জানান, “সাংবাদিকরা সমাজ, দেশের দর্পণ। আপনারাই বলুন এটি কেমন ঘৃনিত কাজ! এমনিতেই আমার অসুস্থ্য স্বামী জেলেখানায় নির্যাতনের মুখে রয়েছে। তার উপর, বিষফোড়া হয়ে দেখা দিয়েছে বাড়িতে কাফন পাঠানোর ঘটনা।”|

তিনি আরো বলেন, “এই নিয়ে দুইবার একটি প্যাকেটের ভেতর আমার স্বামীকে বিএনপির রাজনীতি পরিত্যাগ করার হুমকিসহ (যা মুখে বা লেখার অযোগ্য) অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজ করে কাফনসহ মানুষ দাফন করার আনুষঙ্গিক সব কিছুই ছুঁড়ে ফেলে গেছে। এ ব্যাপারে পুলিশ কোন ব্যবস্থা নিচ্ছেন না।”

সরেজমিনে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে সাবেক এই মন্ত্রীর পৈত্রিকবাড়ী মুরাদনগরের শ্রীরামপুর। গ্রামের বিল্ডিংটির চারপাশে বাউন্ডারী দেয়া। কলাপসিবল গেট লাগানো থাকে সন্ধ্যার পর থেকে। রফিকুল ইসলাম মিয়ার চাচাতো ভাই আবুল হোসেন ও তার ছেলে সিলেট চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্র্যাট শান্ত উদ্দিনের পিএস মো. পারভেজ বর্তমানে এই বাড়ি রাণাবেন করছেন।

তিনি জানান, “কাফনের কাপড়ের সাথে গোলাপজল, সাবান, মোমবাতি ও আগরবাতি ছিলো প্যাকেটে। গত শুক্রবার মধ্যরাতে ঢিলছুড়ে প্যাকেটটি বাড়ির ভেতর এসে পড়ে। গতকালের প্যাকেটে হুমকিসহ চিঠি ছিলো। কিন্তু, শনিবার ৭টায় টিভিতে খবর দেখার সময় আবারো একই কায়দায় প্যাকেট ছুঁড়ে দুর্বৃত্তরা।”

তিনি আরো বলেন, “বিষয়টি থানায় জিডি না নেয়ার গতকালই মুরাদনগর থানায় অভিযোগ (জিডি) লিখিতকারে দিতে গেলে ডিউটি অফিসার গ্রহণ করলেও লিপিবদ্ধ করেননি।”

এ বিষয়ে স্থানীয় বিএনপি নেতা-কর্মীসহ চাপিতলা ইউপি চেয়ারম্যান মামুনুর রশীদ ভূইয়া জানান, ব্যারিষ্টার রফিক একজন সজ্জন ব্যক্তি। তিনি বিএনপি করেন বলে এটি অপরাধ হতে পারে না। পুলিশের উচিত দুর্বৃত্তদের খোঁজে বের করে শাস্তি দেয়া। এটি মানসিক নিপীড়ন।

এ বিষয়ে মুরাদনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে থানায় না পেয়ে এ বিষয়ে ফোনে জানতে চাইলে তিনি ব্যস্ত আছেন বলে লাইন কেটে দেন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।