কাঠগড়ায় দ্বিতীয় শ্রেনীর শিক্ষার্থী শরিফ

মিথ্যা অভিযোগে দায়ের করা মামলায় হাজিরা দিতে গিয়ে বার্ষিক পরীক্ষা দেয়া হলো না দ্বিতীয় শ্রেনীর ছাত্র শরিফুজ্জামান (৮) এর। অন্যদিকে তাকে মামলায় জড়ানোর ফলে মানসিক ভাবে বিপর্যস্ত হয়েছে সে।

মামলা সূত্রে জানাগেছে, গত ৩০ অক্টোবর বুধবার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে শেখমাটিয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি হাবিবুর রহমান ডাকুয়ার মাছের খামারে বিষ প্রয়োগ করে মাছ লুট কওে দুর্বিত্ত্বরা। এ ঘটনায় হাবিবুর রহমান সপ্তাহ খানেক পর ৭ নভেম্বর নাজিরপুর থানায় একটি বিষ প্রয়োগে মাছ লুটের একটি মামলা করেন। ওই মামলায় নাজিরপুর উপজেরা যুবদল সভাপতি শাফিকুল ইসলাম, থানা বিএনপির সহ সভাপতি তৌহিদুল ইসলামের ভাই বিএনপি কর্মী মোজাহিদুল ইসলামসহ তার ভাগ্নে নাজিরপুর উপজেলার ৪১ নং রেজিষ্ট্রার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেনীর ছাত্র শরিফকেও আসামী করা হয়। বুধবার তার স্কুলের বার্ষিক পরীক্ষায় তার চারুকারু বিষয়ে পরীক্ষা দেয়ার কথা ছিল। কিন্তু মামলার তারিখ থাকায় জামিন নিতে আসায় তার দ্বিতীয় শ্রেনীর বার্ষিক পরীক্ষা শেষ করা হলো না। তার অভিযোগ কোন দোষে তাকে পরীক্ষা থেকে বিরত করা হল।
শরিফ নাজিরপুর উপজেলার ৪১ নং রেজিষ্ট্রার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র। সে নাজিরপুর উপজেলার চর রঘুনাথপুর গ্রামের আব্দুল কুদ্দুস সিকদারের ছেলে।
এ ব্যাপারে মামলার বাদী হাবিবুর রহমানকে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি এ ঘটনায় শরিফ সরাসরি সংশ্লিষ্ট রয়েছে বলে জানান।
এ ব্যাপারে শেখমাটিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও শরীফের মামা তৌহিদুল ইসলাম জানান, শুধুমাত্র রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারনে হয়রানীর উদ্দেশ্যে তাদেও বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। তিনি জানান, একজন শিশুকে মামলায় জড়িয়ে বাদী তার নৈতিক অবক্ষয় ও হীনমন্যতার পরিচয় দিয়েছেন।

তবে শরীফুজ্জামান জানায়, সে এঘটনার কিছুই জানেননা। মামলার কারনে পরীক্ষা দিতে না পারায় সে কথা বলতে বলতে কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে। সে বলে, এ ঘটনার বিচার করবে কে?
জেলা বিএনপির সম্পাদক আলমগীর হোসেন জানান,  বিষয়টি মর্মস্পর্শী ও অত্যান্ত হৃদয়বিদারক। তিনি জানান, তারা এরকম রাজনীতি চাননা যেখানে শিশুরাও নিরাপদ নয়।

তবে আজ বুধবার সে স্বেচ্ছায় হাজির হয়ে আদালতে জামিন চাইলে বিচারক তার জামিন আবেদন মঞ্জুর করেন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।