ফেনীতে পুলিশের সাথে সংঘর্ষে যুবদল নেতা নিহত, চার পুলিশ সহ আহত অর্ধশতাধিক

ফেনীতে বুধবার বিকালে যুবদলের মিছিলে পুলিশের গুলিতে এক যুবদল নেতা নিহত হয়েছে। এসময় অন্তত ১০ জন গুলিবিদ্ধ সহ ৬০ জন আহত হয়েছে। এ ঘটনায় এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি ও উত্তেজনা বিরাজ করছে।
পুলিশ, প্রত্যদর্শী সূত্র জানায়, অবরোধের সমর্থনে গতকাল বিকাল ৪ টার দিকে শহরের ওয়াপদা মাঠ সংলগ্ন স্থান থেকে জেলা যুবদলের সদ্য স্থগিত হওয়া সভাপতি গাজী হাবিব উল্যাহ মানিকের নেতৃত্বে যুবদল একটি মিছিল বের করে। মিছিলটি ট্রাংক রোডের দিকে অগ্রসর হওয়ার সময় পুলিশ ফাঁড়িতে ইট-পাটকেল নিপে করে আশপাশের দোকানপাট ভাংচুর চালায়। মিছিলকালীরা ইসলামপুর রোডের মাথায় পৌছলে পুলিশ তাদের ল্য করে টিয়ারশেল নিপে করলে সংঘর্ষ বেধে যায়। একপর্যায়ে মিছিলকারীরা পুলিশকে ল্য করে ককটেল ও ইট-পাটকেল নিপে করলে পুলিশ গুলি ছোঁড়লে যুবদল কর্মীরাও পাল্টা গুলি ছোড়ে। এতে চার পুলিশ সহ অন্তত ১০ জন গুলিবিদ্ধ হয়। এদের মধ্যে সদর উপজেলার ফরহাদনগর ইউনিয়ন যুবদলের সহ-সভাপতি হারুন-উর রশিদ (২৮) নিহত হয়। নিহত হারুনের দুই ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে। অপর আহতদের অবস্থা আশংকাজনক। আহতদের মধ্যে পুলিশ সদস্য সামছুদ্দীন (৩৮), মাঈন উদ্দিন (৫২), সামছুর রহমান, আক্তার, যুবদল কর্মী আরমান, মিন্টু, সুমন, কাজী আবু বকর ছিদ্দিক, ইসমাইল হোসেনের নাম জানা গেছে। এদিকে পুলিশের সাথে ছাত্রলীগ-যুবলীগ কর্মীরাও সশস্ত্র হামলা চালায়। সন্ধ্যায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থেমে থেমে সংঘর্ষ চলছিল।
গাজী হাবিব উল্যাহ মানিক জানান, পুলিশ বিনা উস্কানীতে শান্তিপূর্ণ মিছিলে নির্বিচারে গুলি চালায়। তাদের গুলিতে যুবদল নেতা হারুন-উর রশিদ নিহত হয়।
ফেনী শহর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই কামাল উদ্দিন জানান, মিছিল থেকে পুলিশ ফাঁড়িতে ইট-পাটকেল নিপে করলে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে গুলি ছোঁড়ে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।