বুড়িচংয়ে শিবির-পুলিশ সংঘর্ষ : ৭ জন গুলিবিদ্ধসহ আহত ১৫

১৮ দলীয় জোটের অবরোধ ও জামায়াতের ডাকা হরতাল চলাকালে বুধবার সকাল সাড়ে ৭টায় বুড়িচং উপজেলার সৈয়দপুরে জামায়াত-শিবিরের সাথে পুলিশের সংঘর্ষ হয়। এতে জামায়াত শিবিরের ৭ জন গুলিবিদ্ধসহ ১৫ জন আহত হয়েছে।

এসময় শিবির কর্মীদের হামলায় বুড়িচং থানার ওসি (তদন্ত) কামরুজ্জামান সিকদার সহ ৫ পুলিশ সদস্য আহত  হয়েছেন। এ ঘটনায়  জড়িত সন্দেহে পুলিশ ৩ জনকে আটক করেছে।

জানা যায়, জামায়াতের হরতাল চলাকালে সৈয়দপুরে জামায়াত-শিবির কর্মীরা রাস্তা অবরোধ করতে চাইলে পুলিশ তাদের ধাওয়া করে। এ সময় তারাও পুলিশকে লক্ষ্য করে ১৫-২০ টি ককটেল, পেট্রোল বোমা ও ইট-পাটকেল ছুড়ে। পুলিশ এ সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ৭ রাউন্ড চায়না বন্দুকের গুলি, ১৪২ রাউন্ড রাবার বুলেট ও ১টি টিয়ারশেল ছুড়ে।

এ সময় জামায়াত-শিবিরের ৭জন গুলিবিদ্ধসহ ১৫ জন আহত হয়। এর মধ্যে গুলিবিদ্ধ ৪ জনের অবস্থা আশংকাজনক বলে জানিয়েছেন শিবির কর্মীরা। এ ঘটনায় পুলিশের ওসিসহ ৫ পুলিশ সদস্য আহত হয়।

আহত পুলিশ সদস্যরা হলেন, বুড়িচং থানার ওসি (তদন্ত) কামরুজ্জামান সিকদার,  এসআই রাহাত সিদ্দিকী, কন্সটেবল দেবদাস, কন্সটেবল বাহাউদ্দিন, আনসার সদস্য আব্দুর মজিদ। আহত জামায়াত-শিবির কর্মীদের পরিচয় পাওয়া যায়নি। আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানাগেছে। ঘটনায় জড়িত থাকার সন্দেহে এ এলাকা থেকে ৩ জনকে আটক করেছে পুলিশ । আটক হওয়া ব্যক্তিরা হলেন, সৈয়দপুরের ওয়ার্ড মেম্বার মোস্তফা, আবুল বাশার ও রুহুল আকবর।

বুড়িচং থানার ওসি (তদন্ত) কামরুজ্জামান সিকদার জানায়, শিবির কর্মীরা রাস্তা অবরোধ করতে চাইলে আমরা তাদের বাধা দিলে তারা আমাদের উপর হামলা চালায় । এ ঘটনায় আমি সহ আমার ৪ পুলিশ সদস্য আহত হয় । গুলি করার বিষটিও তিনি নিশ্চিত করেন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।