কক্সবাজারে বাঁধা-বিপত্তি উপেক্ষা করে কাদের মোল্লা মুক্তি মঞ্চে লক্ষাধিক জনতার ঢল

# রাস্তায় আসরের নামাযে কান্নার রোল
জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল আবদুল কাদের মোল্লাকে হত্যা ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে চতুর্থ দিনের হরতাল ভোর সকাল থেকে খন্ড খন্ড মিছিল, পিকেটিং ও সর্বাত্মক অবরোধের মধ্যদিয়ে কক্সবাজারে শান্তিপূর্ণ ও স্বতঃস্ফূর্তভাবে পালিত হয়েছে। বাঁধা-বিপত্তি উপেক্ষা করে আবদুল কাদের মোল্লা মুক্তি মঞ্চে নামে লক্ষাধিক জনতার ঢল। একইভাবে বৃহস্পতিবার পালিত হয়েছে ১৮দলীয় জোটের ডাকা ১৪৪ ঘণ্টার অবরোধ কর্মসূচির ৬ষ্ঠ দিনও। হরতালের সমর্থনে বিকাল ৩টার দিকে কক্সবাজার শহরে কাদের মোল্লা মুক্তি মঞ্চের উদ্যোগে বিশাল বিক্ষোভ মিছিল বের হয়েছে। মিছিলটি বাজারঘাটা থেকে শুরু হয়ে প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে কালুর দোকান স্টেশন এলাকায় এক সমাবেশে মিলিত হয়। শহর জামায়াতের আমীর অধ্যাপক আবু তাহের চৌধুরী সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও কক্সবাজার জেলা আমীর মুহাম্মদ শাহজাহান। তিনি তার বক্তব্যে বলেন, যুদ্ধাপরাধ নয়- মানবতার কল্যাণে ইসলামী আন্দোলন করাই ছিল আবদুল কাদের মোল্লার অপরাধ। মহামাণ্য প্রেসিডেন্ট কর্তৃক তার মৃত্যু পরোয়ানা প্রত্যাহার করা না হলে বাংলাদেশকে শান্ত করা সম্ভব হবেনা। আওয়ামীলীগ প্রাণপ্রিয় এই নেতাকে ফাঁসি দেয়ার উদ্যোক্ত দেখালে এদেশের জনগণ আওয়ামী রাজনীতিকে চিরদিনের জন্য ফাঁসি দেবে বলে তিনি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন। এতে বক্তব্য রাখেন শহর সেক্রেটারি সাইদুল আলম, ইসলামী ছাত্রশিবিরের কক্সবাজার শহর সভাপতি আ.ন.ম হারুন, শহর জামায়াতের সহ-সেক্রেটারি জাহেদুল ইসলাম, আবদুল্লাহ আল ফারুক, শহর ছাত্রশিবিরের সেক্রেটারি জাহেদুল ইসলাম নোমান প্রমুখ নেতৃবৃন্দ। সমাবেশে শেষে হাজার হাজার মানুষ রাস্তায় আসরের নামাজ আদায় করে কেঁদে কেঁদে আল্লাহর কাছে ফরিয়াদ করেন। এসময় নামাযের বিশাল কাতার বেষ্টিত পুরো এলাকা জুড়ে কান্নার রোল পড়ে যায়।
এদিকে অবরোধ ও হরতাল চলাকালে কক্সবাজার শহর ও শহর উপকণ্ঠ খরুলিয়ায় ব্যাপক অবরোধ সৃষ্টি করে জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীরা। শ্রমিক নেতা আয়াতুল্লাহর নেতৃত্বে শত শত খরুলিয়ার গ্রামবাসী অবরোধকারীদের সাথে নেমে পড়ে। এসময় পুলিশ ৮ নিরীহ ব্যক্তিকে আটক করে।
অন্যদিকে জেলার সীমান্ত উপজেলা উখিয়ায় কোটবাজার, হিজলিয়া, উখিয়া স্টেশন ও থাইংখালীতে হাজার হাজার নেতাকর্মীরা প্রধান সড়ক অবরোধ করে এবং একাধিক স্থানে গণমিছিল বের হয়। এতে নেতৃত্ব দেন উখিয়া উপজেলা আমীর মাওলানা আবুল ফজল, জামায়াত নেতা মাওলানা নুরুল হক ও ছাত্রনেতা মোঃ আবদুর রহিম। একই দাবিতে রামুর কাউয়ারখোপেও সমাবেশ ও অবরোধ গড়ে তোলা হয়। এছাড়াও সাংগঠনিক উপজেলা ঈদগাঁওতে স্থানীয় আমীর ডাঃ আমীর সুলতান, মাওলানা সলিম উল্লাহ জিহাদী ও ছাত্রনেতা লায়েক বিন ফাজেলের নেতৃত্বে সাধারণ জনগণকে সাথে নিয়ে হাজার হাজার জনতার অবরোধ গড়ে তোলা হয়। অপরদিকে জামায়াত নেতা আবদুল কাদের মোল্লার মৃত্যু পরোয়ানা রায়ের পুনর্বিবেচনার আবেদন খারিজ করে দেয়ার প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার বিকালে চকরিয়া পৌর শহরে দফায় দফায় বিক্ষোভ মিছিল করে জামায়াত-শিবির। এদিকে আঠারো দলীয় জোটের ১৪৪ঘণ্টা অবরোধ ও জামায়াতের চতুর্থ দিনের হরতাল কর্মসূচি স্বতঃস্ফূর্তভাবে পালন করায় জেলাবাসীকে আন্তরিক অভিনন্দন ও মুবারকবাদ জানিয়েছেন জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও কক্সবাজার জেলা আমীর ও জেলা সেক্রেটারি জিএম রহিমুল্লাহ।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।