রাজধানীতে পুলিশের এএসআই খুন, স্ত্রী আটক

রাজধানী ঢাকার মিরপুর ২ নম্বরের কাঁঠালতলা পানির পাম্প এলাকার ১০৫০/৩ নম্বর বাড়ির দোতলা থেকে পুলিশের এক সহকারী উপ-পরিদর্শকের (এএসআই) লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। পুলিশ বলছে, তাকে হত্যা করা হয়ে থাকতে পারে। আর এ কাজে তার স্ত্রীর সংশ্লিষ্টতা রয়েছে বলেও ধারণা করছে পুলিশ।

নিহত ওই পুলিশ সদস্যের নাম হুমায়ুন কবির। তিনি শাহআলী থানায় এএসআই হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

পুলিশ সন্দেহভাজন হিসেবে হুমায়ুনের স্ত্রী রহিমা আকতার রুমিকে আটক করেছে।

শনিবার দিবাগত রাত ২টার দিকে হুমায়ুন কবিরের বাসার খাটের নিচ থেকে তার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

শাহআলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সেলিমুজ্জামান জানান, সাত থেকে আট মাস আগে হুমায়ুন এই থানায় কাজে যোগ দেন। এরআগে তিনি দারুস সালাম থানায় কর্মরত ছিলেন। শুক্রবার রাত ৮টায় থানা থেকে বের হয়ে যান তিনি। এরপর আর থানায় ফিরে আসেননি। মৃত্যু সংবাদ পেয়ে পুলিশ তারা বাসায় যেয়ে খাটের তলা থেকে লাশ উদ্ধার করে।

তিনি আরো জানান, ধারণা করা হচ্ছে তাকে হত্যা করা হয়েছে। এ হত্যার নেপথ্যে তার স্ত্রীর সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গেছে। তবে কি কারণে হত্যাকাণ্ড ঘটেছে তা তার স্ত্রীকে জিজ্ঞাসাবাদে পরিষ্কার হবে। ব্যক্তিগত জীবনে হুমায়ুন শান্ত স্বভাবের ছিলেন।

হুমায়ুনের বড় ভাই আলমগীর হোসেন জানান, ময়মনসিংহের উর্বারিয়ার ভবানিপুরে তাদের গ্রামের বাড়ি। স্ত্রী রহিমা আকতার ও দুই বছরের ছেলে ইসমামকে নিয়ে হুমায়ুন ওই বাসায় থাকতেন। হুমায়ুন ও রহিমার বিয়ে হয় ২০০৮ সালে। গত ১৫/১৬ বছর সে পুলিশ বাহিনীতে চাকরি করছে।

আলমগীর হোসনে জানান, শুক্রবার সে ডিউটি শেষ করে বাসায় চলে যায়। শনিবার তার রাতে ডিউটি ছিল। কিন্তু থানায় না গেলে পুলিশ বাসায় তার খোঁজ করতে এসে লাশ দেখেতে পায়।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।