রায়পুরে ছাত্রলীগ নেতা মিরাজ হত্যার ঘটনায় ২৬ জনের নামে মামলা

লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে জেলা ছাত্রলীগ নেতা মিরাজ হোসেনকে নৃশংসভাবে হত্যা ঘটনায় সোমবার রাতে ১১ জনের নাম উল্লেখ্যসহ অজ্ঞাত আরো ১৫জনকে আসামী করে থানায় হত্যা মামলা করা হয়েছে। নিতহ নেতার পিতা আবুল কালাম বাদী হয়ে এ মামলা করেন।

এ মামলায় বিএনপি ও জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীদের সম্পৃক্ত করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠলেও থানা পুলিশ ও মামলার বাদী এবং আ-লীগের নেতাকর্মীরা কেউ স্বীকার করছেন না। বিএনপি ও জামায়াত ও এ মামলা সম্পর্কে বলতে পারছেন না বলে সংশ্লিষ্টরা জানান।

এদিকে উদ্ভুদ পরিস্থিতিতে ঝামেলা এড়াতে কেরোয়া গ্রামের মাদরাসা-ই-ইশা’আতুল উলূম কাওমী একটি মাদরাসা অনির্দিষ্ট কালের জন্য বন্ধ ঘোষনা করেছেন কর্তৃপক্ষ। সোমবার রাতে শিক্ষকসহ প্রায় এক হাজার শিক্ষার্থী যার যার বাড়িত চলে গেছেনে।

সোমবার সন্ধায় নিহত ছাত্রলীগ নেতা নিহতের ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন চট্টগ্রাম বিভাগের অতিরিক্ত ডিআইজি মাহাবুর রহমান, পুলিশ সুপার মনিরুজ্জামান, ওসি রূপক কুমার সাহাসহ সংশ্লিষ্ট আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর কর্মকর্তাগন।

পুলিশ সূত্রে জানা যায় উপজেলা লূধুয়া গ্রামের ভাঠের মসজিদ এলাকার একটি বাগানে সশস্র মুখোশ পড়া দুবৃত্তদের হাতে খুন হন জেলা ছাত্রলীগের সহ স¤পাদক ও পৌরসভা দেনায়েতপুর গ্রামের মাছ ব্যবসায়ী আবুল কালামের ছেলে মিরাজুল ইসলাম মিরাজ। এসময় ঘাতকরা অপর দুই যুবলীগ কর্মী মোঃ মাসুদ ও বাহারকে কুপিয়ে মারাত্ত্বক জখম করে। হাসপাতালে নিলে ডাক্তার আহত দুই যুবলীগ কর্মীকে রায়পুর হাসপাতাল থেকে লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে প্রেরণ করেছেন।

নিহত মিরাজের পিতা আবুল কালাম বলেন, তিনি সোমবার রাতে ১১জনের নাম উল্লেখ্যসহ আরো অজ্ঞাত ১৫জনের নামে থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। তার ছেলের হত্যাকারীদের গ্রেফতার করতে প্রশাসনের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন।

যোগাযোগ করা হলে মাদরাসা-ই-ইশা’আতুল উলূম কাওমী মাদরাসার মঈনে মুহতামিম মাওলানা আব্দুল ওয়াহিদ বলেন, বুধবার ও বৃহস্পতিবার দুই দিন ব্যাপি এ মাদরাসার উদ্যোগে বাৎসরিক মাহফিল করার আয়োজন করা হয়েছিল। এই গ্রামে ছাত্রলীগ নেতার মৃত্যুর ঘটনাকে কেন্দ্র করে পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে উঠেছিল তাই উদ্ভুদ পরিস্থিতিতে ঝামেলা এড়াতে মাহফিল ও মাদরাসা অনির্দিষ্ট কালের জন্য বন্ধ ঘোষনা করা হয়েছে। সকল শিক্ষক ও ছাত্র যার যার বাড়িতে চলে গেছেন।

রায়পুর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রূপক কুমার সাহা, নিহত মিরাজের পিতা বাদী হয়ে ২৬জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। এ মামলায় বিএনপি জামায়াতের নেতাকর্মী সম্পৃক্ত আছে কিনা এবং তদন্তের স্বার্থে আসামীদের নাম ও ঠিকানা বলা যাচ্ছেনা। মামলাটি তদন্ত করা হচ্ছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।