জামায়াত-শিবিরসহ ১৮দলীয় জোটের অবরোধে পর্যটন কক্সবাজার শহরসহ গোটা জেলা অচল

পর্যটন রাজধানী কক্সবাজারে আঠারো দলের টানা ৮৩ঘণ্টা অবরোধের দ্বিতীয় দিন রোববার দফায় দফায় বিক্ষোভ মিছিল, সমাবেশ ও টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে সড়ক অবরোধের মধ্যদিয়ে অতিবাহিত হয়েছে। এতে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে পুরো জেলা। আগেরদিন শনিবার সন্ধ্যা পৌঁনে ৭টার দিকে একদল দুর্বৃত্ত চকরিয়া পৌর শহরের বিভিন্ন স্থানে টমটম, সিএনজি ও চাঁদের গাড়িসহ অন্তত অর্ধশতাধিক গাড়ির সামনের গ্লাস ভাংচুর করে। এ ঘটনায় আটকের খবর পাওয়া না গেলেও ভাংচুরকারীরা অবরোধ সমর্থক বলে জানা গেছে। শান্তিপূর্ণ অবরোধে কোথাও কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।

পঞ্চম দফা অবরোধের দ্বিতীয় দিনে জামায়াতে ইসলামী ও ইসলামী ছাত্রশিবির কক্সবাজার শহরের বিভিন্ন স্থানে খন্ড খন্ড বিক্ষোভ মিছিল বের করে। মিছিল পরবর্তী সমাবেশও অনুষ্ঠিত হয়। এতে বক্তব্য রাখেন শহর জামায়াতের সেক্রেটারি সাইদুল আলম, সহকারী সেক্রেটারি আবদুল্লাহ আল ফারুক ও শহর ছাত্রশিবিরের সেক্রেটারি জাহেদুল ইসলাম নোমান। তাছাড়া বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দের নেতৃত্বে অবরোধ সমর্থকেরা প্রধান সড়কসহ শহরের দেড় ডজনাধিক গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে সড়ক অবরোধ করে রাখে। ফলে অচল হয়ে পড়ে চট্টগ্রাম-কক্সবাজারের মহাসড়ক ও মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা। তবে প্রহসনের তফসিল বাতিল করে নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন ও নেতাকর্মীর নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে জনতার স্বতঃস্ফূর্ত আন্দোলন শান্তিপূর্ণভাবে চলছে এমনটি দাবি জেলা জোট নেতৃবৃন্দের।

অন্যদিকে সকাল সাড়ে ১১টার দিকে কক্সবাজার শহর ছাত্রদলের সভাপতি শাহিনুর রহমান শাহিনের নেতৃত্বে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। এতে পৌরসভা ৬নং ওয়ার্ড ছাত্রদলের সভাপতি মোহাম্মদ শাহজাহান সহ অংগ-সংগঠনের বিভিন্ন স্তরের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

কক্সবাজারের সীমান্ত উপজেলা উখিয়ায় ভোর থেকে সড়ক অবরোধ করে রাখে কর্মসূচি সমর্থকেরা। দিনভর জামায়াতে ইসলামী, ইসলামী ছাত্রশিবির, বিএনপি ও ছাত্রদলসহ ১৮দলীয় জোট নেতাকর্মীরা খন্ড খন্ড বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করে। এতে নেতৃত্ব দেন উপজেলা জামায়াতের আমীর মাওলানা আবুল ফজল, বিএনপির উপজেলা সেক্রেটারি সরওয়ার জাহান চৌধুরী ও বিএনপি নেতা সুলতান মাহমুদ প্রমুখ নেতৃবৃন্দ। এছাড়াও সদরের বৃহত্তর ঈদগাঁওতে সাংগঠনিক থানা আমীর ডাঃ আমির সুলতান ও ছাত্রশিবিরের সভাপতি লায়েক বিন ফাজেলের নেতৃত্বে বিভিন্ন স্থানে সড়ক অবরোধ, মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

অপরদিকে পঞ্চম দফা অবরোধের সমর্থনে দ্বিতীয় দিন রোববার চকরিয়ায় দুপুর ২টার দিকে পৌরসভা জামায়াতের সেক্রেটারি জননেতা আরিফুল কবিরের নেতৃত্বে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের হয়েছে। মিছিলটি মহাসড়কের চিরিঙ্গা শহর প্রদক্ষিণ করে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে মিলিত হয়। এতে বক্তব্য রাখেন ইসলামী ছাত্রশিবিরের চকরিয়া শহর সভাপতি আজিজুর রহমান, পৌরসভা জামায়াতের সাংগঠনিক সেক্রেটারি মাওলানা জামাল হোছাইন, ছাত্রশিবিরের সাবেক উপজেলা সভাপতি আবদুল্লাহ বাহাদুর, শহর ছাত্রশিবিরের সেক্রেটারি মোহাম্মদ মাঈনুদ্দিন প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।

এদিকে জেলার সর্বদক্ষিণ সীমান্ত এলাকা টেকনাফ, বিচ্ছিন্ন দ্বীপ কুতুবদিয়া, উপকূলীয় জনপদ মহেশখালী ও পেকুয়া এবং রামু উপজেলায় ১৮দলের অবরোধ কর্মসূচি পালিত হয়েছে সর্বাত্মকভাবে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।