কুমিল্লা-৯ লাকসাম-মনোহরগঞ্জ আসনে জাপা প্রার্থীর ভোট গ্রহন স্থগিতের জন্য আবেদন

রবিবার কুমিল্লার লাকসাম-মনোহরগঞ্জ আসনে নির্বাচনী সহিংসতা ভোটগ্রহনে অনিয়ম ও প্রার্থীর এজেন্টদেরকে কেন্দ্র থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগে জাতীয়পার্টির প্রার্থী প্রফেসর ড: গোলাম মোস্তফা ওই দিন দুপুর ১টায় লাকসাম-মনোহরগঞ্জ ভারপ্রাপ্ত নির্বাচনী কর্মকতা ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার নিকট ভোটগ্রহন স্থগিতে আবেদন করেন।

এদিকে গত শনিবার রাতে ১৮দলীয় জোটের নেতা-কমীরা মনোহরগঞ্জের বিনয়ঘর, বাইশগাঁও, বড় চাঁদপুর, হাওরা, মান্দার গাঁও, ভাউপুর, রুদ্রপুর, সরসপুর, কান্দি, মড়হ, ভোগই উত্তর, ভোগই দক্ষিণ ও লাকসামের গৌবিন্দপুর, নুরপুর, কৈত্রা, বিজরা কেন্দ্র ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ এবং নির্বাচনী সরঞ্জামাধি চিনতাই করে।

এ সময় আইন শৃংখলাবাহিনী, সরকার ও ১৮দলীয় নেতা-কর্মীরদের দফা-দফায় সংর্ঘষে পুলিশ সহ অর্ধশাতধিক আহত হয়।

এদিকে ভোটগ্রহনের উপযোগি না থাকায় উপজেলা নির্বাচন কমিশন বাতাবাড়ীয়া, বড় চাঁদপুর,ভাউপুর,বাইশগাঁও সহ ৪টিকেন্দ্রের ভোটগ্রহন স্থগিত করা হয়। লাকসাম মনোহরগঞ্জের বিভিন্ন কেন্দ্রে জাতীয় পার্টির প্রার্থী এজেন্টদেরকে মারধর,ব্যাপক জালভোট দেয়ার অভিযোগ এনে জাপা প্রার্থীর প্রধান নির্বাচনী এজেন্ট অধ্যাপক মাকসুদুর রহমান লাকসাম-মনোহরগঞ্জ ভারপ্রাপ্ত নির্বাচনী কর্মকতা ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার নিকট ভোটগ্রহন স্থগিতে আবেদন করেন।

ভোটগ্রহন চলাকালে লাকসাম-মনোহরগঞ্জের বেশকয়েকটি কেন্দ্রে ব্যাপক সংর্ঘষের ঘটনা ঘটে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।