ভোট পড়েছে ১০ শতাংশের কম

ফেয়ার ইলেকশন মনিটিরিং অ্যালায়েন্স-ফেমা ও বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন জানিয়েছে দশম জাতীয় নির্বাচনে ১০ শতাংশেরও কম ভোট পড়েছে ।

ফেমার পরিচালক মুনিরা খান জানান, আজকের নির্বাচনে সব মিলিয়ে ১০ শতাংশেরও কম ভোটার ভোট দিয়েছেন। বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল-২৪কে তিনি একথা বলেন।

মুনিরা জানান, ‘আমি নিজে রাজধানীর বেশ কয়েকটি ভোট কেন্দ্রে খুব কম ভোটারের উপস্থিতি দেখেছি। এছাড়া দেশের বিভিন্ন স্থানে আমাদের পর্যবেক্ষকরা যেসব খবর দিয়েছেন তাতেও ১০ শতাংশের কম ভোট পড়েছে বলে জানা গেছে।’

তিনি আরো জানান, ‘রাজধানীর অনেক কেন্দ্রে উপস্থিত পোলিং এজেন্টও জানাতে পারেননি তিনি কোন প্রার্থীর পোলিং এজেন্ট।’

অন্যদিকে, নির্বাচনে গড়ে ১০ ভাগ ভোট পড়েছে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন। কমিশনের পরিচালক অ্যাডভোকেট এ কে আজাদ স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে বলা হয়, ভোট কেন্দ্রগুলোতে ভোটার ছিলো খুবই স্বল্প সংখ্যক।

সংগঠনটির দাবি, বেশির ভাগ ভোটকেন্দ্রে ভোটার উপস্থিতি ছিলো শতকরা শূন্য ভাগ থেকে ১০ ভাগ পর্যন্ত। কিছু কিছু কেন্দ্রে ক্ষমতাসীন দলের মনোনীত প্রার্থী ও তাদের বিদ্রোহী প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও ওই সব আসনে সর্বোচ্চ ২০ থেকে ২৫ ভাগের বেশি ভোট পড়েনি।

বিবৃতিতে আরো বলা হয়, রাজধানীর বেশকিছু কেন্দ্র ভোটারবিহীন থাকলেও টেলিভিশন চ্যানেলগুলোর প্রতিনিধিরা আসলেই হঠাৎ করে ৪০-৫০ জন দলীয় কর্মী লাইন ধরে ভোটার লাইনে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়।

এতে বলা হয়, ১০ ভাগ ভোটার উপস্থিতির নির্বাচনকে প্রকৃতপক্ষে নির্বাচন বলা যায় না। এজন্য তারা অবিলম্বে এ নির্বাচন বাতিল করে সব দলের অংশগ্রহণে নতুন তফসিল দেয়ার দাবি জানান। আগেই নির্বাচিত ১৫৩ আসনের ফলাফলও বাতিলের দাবি জানায় সংগঠনটি।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।