লাকসাম-মনোহরগঞ্জে সংঘর্ষে ৩০ জন আহত

কুমিল্লার লাকসাম উপজেলার গোবিন্দপুর ইউনিয়নের গাজীরপাড়ে ও মনোহরগঞ্জ উপজেলার নাথেরপেটুয়া ইউনিয়নের ভোগই বাজারে সোমবার রাতে বিএনপি-জামায়াত ও আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের মাঝে দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ সময়  সহিংসতায় উভয় পক্ষের ১৮টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা, ভাংচুর, আগুন  ও লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে। এতে আহত হয়েছে অন্তত ৩০ জন।
জানা যায়, লাকসাম উপজেলার গোবিন্দপুর ইউনিয়নের গাজীরপাড় বাজারে সন্ধ্যার আগে মুক্তাকিন নামে এক ছাত্রদল কর্মীকে মারধরের জের ধরে এলাকায় বিএনপি-জামায়াত ও আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়। এতে উভয়ের ৫টি দোকানে হামলা, ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটে। তিগ্রস্ত দোকানগুলোর মধ্যে ৪টি চা ও মুদি দোকান ও একটি ভেরাইটিজ ষ্টোর রয়েছে। সংঘর্ষের ঘটনায় উভয়ের ১৫ জন আহত হয়। এদিকে, দুপুরে লাকসাম থেকে কামড্যা বাজার নিজ চেম্বারে যাওয়ার পথে জামায়াত নেতা ডাঃ দেলোয়ার হোসেনকে ইরুয়াইন নামক স্থানে মারধরসহ তার মোটর সাইকেলটি জ্বালিয়ে দেয় দুর্বৃত্তরা। অপরদিকে, মনোহরগঞ্জ উপজেলার নাথেরপেটুয়া ইউনিয়নের ভোগই বাজারে গতকাল দুপুরে বিএনপি-জামায়াত ও আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীদের দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে উভয় পক্ষের ৩টি ফার্মেসী, ৪টি কাপড়, একটি খাবার হোটেল, ৪টি মুদি দোকান ও ১টি চা দোকানে হামলা চালিয়ে ভাংচুর ও লুটপাটসহ খাবার হোটেলে অগ্নিসংযোগ করে দুর্বৃত্তরা। অগ্নিদগ্ধ খাবার হোটেলটি স্থানীয় এক আওয়ামীলীগ নেতার। সংঘর্ষের ঘটনায় উভয়ের ১৫ জন আহত হয়। সংঘর্ষের ঘটনায় আহতদের লাকসাম ও কুমিল্লার বিভিন্ন হাসপাতাল ও কিনিকে ভর্তি করা হয়েছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।