ঈদগাঁওতে শান্তিপূর্ণ মিছিলে পুলিশের গুলি ও শিবিরনেতা লোকমান হাকিমকে গ্রেফতারে জামায়াতের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ

প্রহসনের নির্বাচন বাতিলের দাবিতে ১৮ দল ঘোষিত চলমান অবরোধ ও হরতালের দ্বিতীয় দিনে ঈদগাঁওতে শান্তিপূর্ণ মিছিলে পুলিশের নির্বিচারে গুলিতে ১০ নেতাকর্মী আহত ও কক্সবাজার সরকারি কলেজ শিবির সভাপতি লোকমান হাকিমসহ ঈদগাঁতে থেকে ৫ নেতাকর্মী গ্রেফতারের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বিবৃতি প্রদান করেছেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও কক্সবাজার জেলা আমীর মুহাম্মদ শাহজাহান,  নায়েবে আমীর অ্যাডভোকেট শাহজালাল চৌধুরী , মাওলানা মোস্তাফিজুর রহমান ও সেক্রেটারি জিএম রহীমুল্লাহ।

বিবৃতি নেতৃবৃন্দ বলেছেন, প্রহসনের নির্বাচনের মাধ্যমে আওয়ামী লীগের ক্ষমতাকে দীর্ঘায়িত করার খায়েশ জনগণ পূরণ করতে দিবে না। চলমান গণআন্দোলনের সাথে দেশবাসী সহমত পোষণ করে একতরফা তামাশার নির্বাচন দেশবাসী বর্জনের মাধ্যমে আ’লীগের অসাংবিধানিক ও অগণতান্ত্রিক আচরণের বিরুদ্ধে নীরব প্রতিবাদ জানিয়েছ্।আ’লীগের আশানুরূপ ভোটার ভোটকেন্দ্রে না যাওয়ায় ক্ষমতাকে দীর্ঘায়িত করার খায়েশ জনগণ মাটির সাথে মিশে দিয়েছে। চূড়ান্তভাবে জনবিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ায় আ’লীগ পুরোদমে বিরোধীদলের আন্দোলন দমানোর জন্যে রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস চালাচ্ছে। মিথ্যা মামলা ও গণগ্রেফতার করে সরকার ক্ষমতায় ঠিকে থাকতে পারবে না। রাষ্ট্রীয় শক্তিপ্রয়োগের বিরুদ্ধে দেশবাসী যেভাবে ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে অবর্তীণ হয়েছে অচিরেই তা সফলতায় পৌঁছবে। নেতৃবৃন্দ আরো বলেছেন, পর্যটন শহর হিসেবে কক্সবাজারে আমরা সর্বোচ্চ ধৈর্য ও শান্তি বজায় রেখে  গণতান্ত্রিক আন্দোলনের কর্মসূচী পালন করে আসছি। দুঃখজনক হলেও  সত্য অতি উৎসাহি কিছু পুলিশ কর্মকর্তার ভূমিকা শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখতে ব্যাঘাত সৃষ্টি করছে। শান্তিপূর্ণ পরিবেশকে ঘোলাটে করার কুমানসে আইনশৃংখলা বাহিনী কাকে খুশি করতে শান্তিপূর্ণ মিছিলে গুলি চালাচ্ছে তা আমাদের বোধগম্য নয়। জনগণের টাকায় কেনা গুলি যখন-তখন জনগণের বুকে চালানো আইনশৃংখাবাহিনীর ফ্যাশনে পরিণত হয়েছে। আমরা শান্তিপূর্ণ পরিবেশ অক্ষুন্ন রাখতে সর্বোচ্চ ধৈর্যের পরিচয় দিচ্ছি। নেতৃবৃন্দ বলেন, কক্্সবাজার পলিটেকনিক ইনষ্টিটিউট শিক্ষার্থীদের ছাত্রাবাসে পুলিশের ছত্রছায়ায় ছাত্রলীগ সন্ত্রাসীদের অগ্নিসংযোগ ও কম্পিউটারসহ আসবাবপত্র লুটপাটে আমরা হতবাক। আইনশৃংখলাবাহিনীর উপস্থিতিতে এরকম ন্যক্কারজনক ঘটনার আমরা তীব্র নিন্দা জানাই। অবিলম্বে এঘটনায় প্রকৃত দোষীদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি। নেতৃবৃন্দ বলেছেন, আমাদের শান্তিপূর্ণ গণতান্ত্রিক কর্মসূচীতে বাধা না দিলে শান্তিপূর্ণভাবে আমরা কর্মসূচী পালন করতে পারি; সেটা আমরা ইতোমধ্যে প্রমাণ করেছি। সুতরাং আমরা আশা করি প্রশাসন কোন ধরনের হঠকারিমূলক আচরণ করবে না। নেতৃবৃন্দ অবিলম্বে শিবিরনেতা লোকমান হাকিমসহ  গ্রেফতারকৃত সকল নেতাকর্মীর মুক্তি দাবি করেন এবং প্রশাসনকে  উসকানিমূলক গ্রেফতার ও মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানান। কক্্সবাজারের শান্তিপূর্ণ পরিবেশ রক্ষায় সকল মহলকে এগিয়ে আসার আহবান জানান।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।