কানাইঘাটে জালভোটের মহোৎসবে জমিয়তের বিজয় ছিনিয়ে নিলো আ‘লীগের প্রার্থী

সিলেটের কানাইঘাট উপজেলায় স্থগিত হওয়া একটি ভোট কেন্দ্রেও পুনঃভোট গ্রহণ সর্বোচ্চ নিরাপত্তা ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে শুরু হলেও বেলা বৃদ্ধি পাওয়ার সাথে সাথে জালভোটের মহোৎসব লকরাগেছে। কেন্দ্রের বাহিরে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা থাকলেও কেন্দ্রের ভিতর ছিল বিশেষ প্রার্থীর দখলে।  বুধবার সকাল আটটায়  ভোটগ্রহণ শুরু হয়। বিকাল ৪টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ শেষ হয়। কিন্তু দুপুর ১১ টার পরে আওয়ামিলীগ সর্মথিত ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী নিজে বহিরাগত ক্যডারদের মাধ্যমে প্রতিদ্বন্দিপ্রার্থীর এজেন্টদের মারধরকরে কেন্দ্রে থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ করেন জমিয়তের মাওলানা আলীম উদ্দিন । তিনি সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, কেন্দ্রের বাইরে চেয়ারটেবিল নিয়ে বসে থাকা তার সর্মথকদের বিভিন্ন ভাবে হয়রানী করে এমনকি কেন্দ্রে প্রবেশকরতে ও দেওয়া হয়নি।

দুপুরের দিকে, শতাধিক বহিরাগত যুবক ও বোরকাপড়প মহিলা জালভোট দিতে আসলে,হাতে নাতে তাদের ধরাহলেও পুলিশ ছিল নিরব।  এছাড়া  ৪ জন যুবক ও ২ জন মহিলাকে বাবরবার কেন্দ্রেএসে ভোট দেওয়ার প্রমান মিললেও তাদের আটক করে কিছু সময় যেতে না যেতেই তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়। জাল ভোট দিতে গিয়ে পুলিশ শিবনগর দারুল কোরআন মাদ্রাসার এক ছাত্রকে আটক করে। আটককৃত ব্যাক্তির নাম জানতে চাইলে সে প্রথমে কুদরত উল্লা,সালেহ আহমদ ও উবায়দুর রহমান বলে নাম পরিচয় দেয়।সূত্রে জানাযায় আটত কৃত ছাত্র সরকার দলীয় প্রাথী জাহাঙ্গীর আলম রানার পে ভোট দিতে কেন্দ্র প্রবেশ করলে তাকে সন্ধেহ জনক ভাবে আটক করা হয়।ভোট কেন্দ্র আশপাশে থেকে খবর নিয়ে জানাযায় যে জাল ভোটের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

ভোয়া ভোটের প্রশ্নে আটককৃতদের জিঞ্জাসাবাদেও জন্য মিডিয়াকর্মীদের উপর চড়াওহন, মাইক প্রতীকধারী  আওয়ামীলীগ সমর্থিত ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম রানা ।

তিনি একপযার্য়ে স্থানীয় একটি দৈনিকের প্রতিনিধির নাম ধরে তাকে কেন্দ্র থেকে বেরকরে দেওয়ার জন্য দলীয় কর্মীও প্রশাসনের প্রতি আহবান জানান। সাংবাদিকদের উপস্থিতির কারণে তখন জালভোটের মহোৎসব কিছুটা হ্রাস পাওয়ায় রানা প্তিহন সাংবাদিকদের ওপর।  স্থগিত হওয়া উক্ত ভোট কেন্দ্রে পুনরায় শুধুমাত্র ভাইস চেয়ারম্যান পদে ভোট গ্রহণ হয়। জমিয়ত নেতা মুফতি এহসান উল্লাহ জানান, ভোট চলাকালে সরকারদলীয় ক্যাডারদের হামলায় তাদের অন্তত ৪ জন কর্মী আহত হন। এবং ভোট শেষে আওয়ামী সর্মথিত দারুল উলুম কানাইঘাট মাদ্রাসার ছাত্রদের হামলার গুরুতর আহত হয়েছেন জমিয়ত নেতা মাওলানা রেজাউল করিম রেজা।

সর্বশেষ প্রাপ্ত ফলাফল অনুযায়ী আওয়ামী লীগ সমর্থিত জাহাঙ্গীর আলম রানা বিজয়ী হয়েছেন। বুধবার অনুষ্ঠিত শিবনগর কেন্দ্রের ভোটের ফলাফলে তিনি প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর চেয়ে ৪৩ ভোট৩বেশী দেখিয়ে বিজয়ী ঘোষণা করাহয়।

ওই কেন্দ্রে জাহাঙ্গীর আলম রানা পেয়েছেন ১৭১৯ ভোট। আর প্রতিদ্বন্দ্বী জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম সমর্থিত মাওলানা আলিম উদ্দিন পান ৪৪৭ ভোট। ৩৩০০ ভোটের মধ্যে কাস্টহয়েছে ২২১০ ভোট।

এর আগে গত ২৩ মার্চ অনুষ্ঠিত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ৬৬টি কেন্দ্রের ফলাফলে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম সমর্থিত মাওলানা আলিম উদ্দিন ১২২৯ ভোটে এগিয়ে ছিলেন। কিন্তু, ব্যালট বাক্স ছিনতাই ও ভোট জালিয়াতির অভিযোগে শিবনগর দারুল কোরআন মাদ্রাসা কেন্দ্রের ফলাফল স্থগিত রাখা হয়। বুধবার এ কেন্দ্রের ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। এ কেন্দ্রের ফলাফল ঘোষণার পর চশমা প্রতীকের প্রার্থী জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম সমর্থিত মাওলানা আলিম উদ্দিন পুন:রায় ভোট গণনার জন্য কানাইঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট লিখিত ভাবে দাবী জানিয়েছেন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।