পুলিশের কাজে বাধা, নীলফামারীতে ছাত্রলীগের ৫০ জনের বিরুদ্ধে মামলা

নীলফামারীর ডিমলায় সরকারি কাজে বাধা ও  পুলিশের ওপর হামলার অভিযোগে উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক উত্তম কুমার রায়কে প্রধান আসামি করে ২৫ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরো ২০/২৫ জনের নামে মামলা করেছে পুলিশ।

ডিমলা থানার উপ-পরির্দশক (এসআই) আবু  নাসের রায়হান বাদী হয়ে শনিবার রাতে এই মামলা করেন।

এ ব্যাপারে রোববার দুপুরে ডিমলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. শওকত আলী জানান, “সরকারি কাজে বাধা  ও কর্তব্যরত পুলিশ সদস্যের ওপর হামলার অভিযোগে ডিমলা  থানার এসআই আবু নাসের রায়হান বাদী হয়ে উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক উত্তম কুমারকে প্রধান আসামি করে ২৫ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরো ২০ থেকে ২৫ জন ছাত্রলীগ নেতাকর্মীর নামে একটি মামলা করেন।”

উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক উত্তম কুমার রায় বলেন, “যে অভিযোগে আমার বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে তা সত্য নয়। শনিবার সন্ধ্যায় পুলিশ সদস্যরা আমার মোটরসাইকেল আটক করলে উপস্থিত ছাত্রলীগ কর্মীরা কিছুটা উত্তেজিত হয়। তবে আমি বা আমার কোনো নেতাকর্মী সরকারি কাজে বাধা  ও পুলিশের ওপর হামলা করিনি।”

উল্লেখ্য, শনিবার সন্ধ্যা ছয়টার দিকে ডিমলা উপজেলার শহীদ মিনার চত্বরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক আশরাফুজ্জামানের নেতৃত্বে  বিভিন্ন যানবাহনের কাগজপত্র যাচাই-বাছাই চলছিল। এ সময় উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক উত্তম কুমারের মোটরসাইকেলটি আটক করায় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা পুলিশের সঙ্গে বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়ে।  এক পর্যায়ে নেতাকর্মীরা পুলিশের ওপর হামলা করে। এ সময় আল আমীন নামের এক পুলিশ সদস্য আহত হন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ এক রাউন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।