নাঙ্গলকোটে চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে দেয়ায় কয়েকটি পরিবার গৃহবন্দি ॥ রক্তয়ি সংঘর্ষের আশংকা

কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলার পেরিয়া ইউপির দৌলতপুর গ্রামের মোস্তফা মাষ্টারের বাড়ীর চলাচলের রাস্তায় বেড়া নির্মান করে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করা হয়েছে। ৪৫ বছর যাবত চলাচলের রাস্তাটি হঠাৎ বন্ধ করে দেয়ায় কয়েকটি পরিবার মাসাধিককাল গৃহবন্দি হয়ে আছে। এ ব্যাপারে মোস্তফা মাষ্টারের পরিবার উপজেলা নির্বাহি অফিসার, থানা এবং ইউপি চেয়ারম্যানের নিকট বিচার প্রার্থী হয়েও কোন প্রতিকার পাননি। গতকাল বৃহস্পতিবার মোস্তফা মাষ্টারের পরিবার স্থানীয় সাংবাদিকদের কাছে  এসব বিষয়ে অভিযোগ করেন। এদিকে রাস্তাটি বন্ধ করে দেয়ায় রক্তয়ী সংঘর্ষের আশংকা করছে এলাকাবাসি।
নাঙ্গলকোট উপজেলা নির্বাহি আফিসার সাঈদুল আরিফের কাছে মোস্তফা মাষ্টারের বাড়ীর চলাচলের রাস্তা খুলে দেয়ার জন্য দৌলতপুর গ্রামের সচেতন ৭৪জন নাগরিক স্বারিত একটি কপি হস্তান্তর করা হয়। এদের প থেকে ওই গ্রামের আবদুুল মতিন ও ছায়েদুল হক মেম্বার উপজেলা নির্বাহি অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগে জনান, ৪৫বছর যাবত মোস্তফা মাষ্টারের বাড়ীর রাস্তাটি দৌলতপুর গ্রামবাসি ব্যবহার করে আসছে। পার্শ্ববর্তী বাড়ীর মৃত হাজী সূর্য্যত আলী এ রাস্তাটি তৈরি করে দেন। মোস্তফা মাষ্টারের পরিবারসহ পাড়া প্রতিবেশী রাস্তাটি দির্ঘকাল থেকে ব্যবহার করছে।

 

গত ৩১ মার্চ সকালে ওই গ্রামের মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাক, আবদুল মোতালেব ও আবদুল খালেকসহ একটি কুচক্রিমহল কাঁটার বেড়া দিয়ে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে। রাস্তার জায়গার মালিক হাজী ফুলমিয়া ও তার ছেলে জসিমসহ গ্রামবাসী রাস্তা বন্ধকরে বেড়া দেয়ার সময় বাঁধা দিলেও তারা কর্নপাত করেনি। পরে রাস্তাটি খুলে দেয়ার জন্য পেরিয়া ইউপি চেয়ারম্যান সহিদ উল্লাহ মিয়াজীর কাছে নালিশ  করলেও কোন প্রতিকার পাননি। ফলে মোস্তফা মাষ্টারের পরিবার নাঙ্গলকোট থানায় গত ৮এপ্রিল একটি অভিযোগদেন । ওসির নির্দেশে পুলিশের এএসআই জামাল সংঙ্গীয় ফোর্সসহ ঘটনাস্থলে গিয়ে বেড়া উঠিেেয় রাস্তাটি খুলে দেন।

 

পুলিশের নির্দেশনা অমান্য করে মোস্তাক কয়েক জন সন্ত্রাসী নিয়ে গত ১১এপ্রিল পুনরায় রাস্তাটি বন্ধ করে দেয়। খবর পেয়ে পরদিন থানা পুলিশ গিয়ে পুনরায় রাস্তাটি খুলে দেন। ওই সন্ত্রাসীরা ১৫ এপ্রিল আবারো রাস্তাটি বন্ধ করে দেয়। এ রিপোর্ট লেখার সময় বৃস্পতিবার বিকেল পর্যন্ত রাস্তাটি বন্ধ রয়েছে। এসব ঘটনায় দৌলতপুর গ্রামবাসির মাঝে ােভ বিরাজ করছে। রক্তয়ি সংঘাতের আশংকা করছে অনেকেই। গ্রামবাসি অবিলম্বে প্রশাসনের কাছে রাস্তাটি খুলে দেয়ার ও সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জনান।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।