রায়পুরে যৌতুকের দাবিতে স্ত্রীকে হত্যার চেষ্টা

লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার শান্তা (২১) নামের এক গৃহবধূকে যৌতুকের দাবিতে হাত-পা বেধে হত্যার চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার (১ মে) রাতে উপজেলার দক্ষিন চরবংশী গ্রামের স্বামীর বাড়ীতে। গৃহবধু শান্তা ২নং ইউনিয়নের চরইন্দ্ররিয়া গ্রামের আলা উদ্দিনের মেয়ে। পুলিশ রাতেই গৃহবধুকে উদ্ধার করে রায়পুর সরকারী হাসপাতাল ভর্তি করে। এঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

 
জানা যায়, প্রায় ২ বছর আগে দক্ষিন চরবংশী এলাকার মজিবুল গাজীর ছেলে মো. ইউনুসের সাথে বিয়ে হয়। বিয়ের কয়েক মাস পরে যৌতুকের জন্য ইউনুস মেয়েটিকে নির্যাতন শুরু করে। পরে শান্তা ব্যবসার কথা বলে তার বাবার কাছ থেকে ৩০ হাজার টাকা এনে দেয়। কিন্তু বখাটে স্বামী কয়েকদিন পর আবারও ৫০ হাজার টাকা এনে দেওয়া জন্য শান্তাকে চাপ সৃষ্টি করে। কিন্তু শান্তা বখাটে স্বামীর কথা মতে টাকা না এনে দেওয়ায় সর্ব শেষে বৃহস্পতিবার সারাদিন তাকে ঘরে বন্ধি করে নির্যাতন শুরু করে। একপর্যায় সন্ধ্যায় পর তাকে হত্যার উদ্ধেশে হাত-পাতা বেঁধে শান্তার মুখের ভিতর কাপড় ডুকিয়ে গলা চেপে ধরে। এতে শান্তা ঘরের ভিতর ফাছড়া ফাচড়ির করলে পাশের লোকজন শব্দ শুনে এগিয়ে এসে ঘরে ডুকে পুলিশে খবর দেয়। পরে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে রায়পুর সরকারী হাসপাতালে ভর্তি করে।

 
হাসপাতালে ভর্তি নির্যাতিত শান্তা বলেন, সারাদিন কয়েক দফায় আমাকে মারধর করে ঘরে বন্ধি করে রাখে। পরে সন্ধ্যায় হত্যার উদ্দেশ্যে আমার হাত-পা বেধে মুখের ভিতর কাপড় ডুকিয়ে আমাকে হত্যা করার চেষ্টা করে। এঘটনাল মামলা করা প্রস্তুতি নিচ্ছি। আমি এ বিচার চাই।

 
যোগাযোগ করা হলে স্বামী মো. ইউনুস পালাতক থাকায় তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।
হাজিমারা ফাড়ি থানার ইনর্চাজ (এসআই) আব্দুল খালেক বলেন, স্বামী আলা উদ্দিনের ঘরে বন্দি অবস্থায় মেয়েটিকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এঘটনায় মামলা হলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।