মুক্তাগাছায় ভ্যান চালককে শ্বাসরোধে হত্যা

মুক্তাগাছায় আইনশৃঙ্খলার চরম অবনতি ঘটেছে। ১১ দিনে তিনটি খুনের ঘটনায় মানুষজন আতঙ্কিত। সর্বশেষ ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার বাদেকলমোহনা গ্রামে।

জানা যায়, বৃহস্পতিবার রাতে ভ্যানচালক আবুল কালাম ওরফে কালা মিয়াকে (৫২) সন্ত্রাসীরা বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে হত্যা করে তার লাশ বিলের মাঝে ধান ক্ষেতে ফেলে রেখে যায়। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরণ করেছে। ঘটনার সাথে সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে তাইজুল নামের এক কলেজ ছাত্রকে আটক করা হয়েছে।

এলাকাবাসী, নিহতের পরিবার ও থানা পুলিশ জানায়, বাঁশাটী ইউনিয়নের বাদেকলমোহনা গ্রামের হাসান আলীর ছেলে ৫ সন্তানের জনক ভ্যান চালক আবুল কালাম ওরফে কালা মিয়াকে বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত সাড়ে ১০টা দিকে তার পূর্ব পরিচিত দরিপাড়া গ্রামের আঃ মান্নান মাষ্টারের পুত্র ও মুক্তাগাছা মহাবিদ্যালয়ের ১ম বর্ষের ছাত্র তাজুল ইসলামসহ  (১৭) তার কয়েকজন সঙ্গী বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে কোন নির্জন স্থানে গলায় গেঞ্জি পেচিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। পরে দরিপাড়া বিলের মধ্যখানে নির্জন স্থানে ধান ক্ষেতে লাশ রেখে পালিয়ে যায়।

শুক্রবার সকালে বিলের জমিতে ধান কাটতে গিয়ে এলাকাবাসী কালার লাশ দেখতে পেয়ে থানা পুলিশে সংবাদ দিলে পুলিশ গলায় গেঞ্জি পেঁচানো অবস্থায় কালা মিয়ার লাশ উদ্ধার করে। এসময় নিহত আবুল কালামের শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের ক্ষত চিহৃ উপস্থিত লোকজন প্রত্যক্ষ করে।

পরিবারের সদস্যদের ধারণা, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে অথবা গোপনীয় কিছু জেনে ফেলায় সন্ত্রাসীরা পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে তাকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছে।

মুক্তাগাছা থানার ওসি (তদন্ত) আঃ কাদের সাংবাদিকদের বলেন,“এ ঘটনায় একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদের মাধ্যমে প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে।”

জানা যায়, গত ২১এপ্রিল উপজেলার রামভদ্রপুর গ্রামে দিনে দুপুরে এক মাদকাসক্তের দায়ের কূপে নাইমুল ইসলাম নামের এক স্কুলছাত্র ও ২৯ এপ্রিল বালিয়া বটতলা গ্রামে আ. লতিফ খান নামে এক কৃষককে রাতের আঁধারে সন্ত্রাসীরা গলাকেটে হত্যা করেছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।