নাঙ্গলকোটে বিএনপির দুই ভূঁইয়ার কোন্দল আহবায়ক কমিটি বাতিলের দাবি একাংশের

কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটিকে কেন্দ্র করে আবারও আভ্যন্তরীন কোন্দল শুরু হয়েছে। দলের একাংশের নেতা-কর্মীরা ওই আহবায়ক কমিটি বাতিল করে সর্বজন সমর্থিত একটি পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের দাবি জানিয়েছেন।
দলীয় সূত্রে জানা যায়, নাঙ্গলকোট উপজেলা বিএনপিতে দীর্ঘ দিন ধরে নেতৃত্বের কোন্দল চলছে। এই কোন্দলতা কখনও আভ্যন্তরীন আবার কখনও প্রকাশ্যে রূপ নেয়। কিছু দিন যাবৎ এই নিয়ে মাতামাতি না থাকলেও সম্প্রতি উপজেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটিকে কেন্দ্র করে আবারও কোন্দলতা শুরু হয়।

 
সূত্র জানায়, গত ২৫ ডিসেম্বর কুমিল্লা জেলা বিএনপি মো. মোবাশ্বের আলম ভূঁইয়াকে আহবায়ক করে নাঙ্গলকোট উপজেলা বিএনপির ৩১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির অনুমোদন দেন।

 
উপজেলা বিএনপির একাংশের নেতৃত্বে রয়েছেন দলের সাবেক সভাপতি ও সাবেক সাংসদ মো. আবদুল গফুর ভূঁইয়া। অপরাংশের নেতৃত্বে রয়েছেন উপজেলা বিএনপির আহবায়ক মো. মোবাশ্বের আলম ভূঁইয়া।

 
গফুর ভূঁইয়ার অনুসারী দলীয় নেতা-কর্মীদের অভিযোগ, দলের গঠণতন্ত্র অনুযায়ী আহবায়ক কমিটি গঠণের তিন মাসের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ কমিটি করতে হয়। কিন্তু এই ক্ষেত্রে তা মানা হয়নি। ফলে নাঙ্গলকোট উপজেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটি সম্পূর্ণ গঠণতন্ত্র পরিপন্থী কার্যক্রম চালাচ্ছে। তাঁরা আহবায়ক কমিটি বাতিলের দাবিতে গত শুক্রবার উপজেলার দৌলখাঁড় ইউনিয়ন বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীরা দলীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন।

 
উপজেলার দৌলখাঁড় ইউপির চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা আবুল খায়ের মজুমদার, ওই ইউপির প্রাক্তন চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন বিএনপি সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবদুল মমিন, একই ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা আবদুল গোফরান সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন। এ সময় মোশারফ হোসেন, মাষ্টার ছায়েদুল হক, সোলাইমান মিয়াজী, মাষ্টার খোরশেদ আলমসহ বিএনপি,যুবদল ও ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

 
বক্তারা, নাঙ্গলকোট উপজেলা বিএনপির বর্তমান আহবায়ক কমিটি অগঠণতান্ত্রিক ও জনবিছিন্ন আখ্যায়িত করে এই কমিটি বাতিল এবং গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় দ্রুত সম্মেলনের মাধ্যমে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠণের জন্য কেন্দ্রীয় ও জেলা কমিটির প্রতি দাবি জানান। অন্যথায় তাঁরা হুঁসিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, দৌলখাঁড় ইউনিয়নের বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীরা একযোগে দল থেকে পদত্যাগ করবে।

 
নাম প্রকাশ না করার শর্তে বিএনপির এক কর্মী নাঙ্গলকোট বাজারের ব্যবসায়ী বলেন, দুই ভূঁইয়ার ঠেলাঠেলিতে দলের বারটা বেজেছে। গত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিএনপি দলীয় প্রার্থীর ভরাডুবির একমাত্র কারণ হচ্ছে দুই ভূঁইয়ার কোন্দলতা।
নাঙ্গলকোট উপজেলা বিএনপির আহবায়ক মো. মোবাশ্বের আলম ভূঁইয়া মুঠোফোনে জানান, গত ২৫ ডিসেম্বর কুমিল্লা জেলা বিএনপি তাঁকে আহবায়ক করে নাঙ্গলকোট উপজেলা বিএনপির ৩১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির অনুমোদন দিয়েছেন। পরবর্তীতে সম্মেলন ও কাউন্সিলের মাধ্যমে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠণ করা হবে। যাঁরা দলের নিয়ম-শৃংখলা মেনে কাজ করবেন, তাঁরাই কমিটির অর্ন্তভূক্ত হবেন।

 
তিনি বলেন, যাঁরা বর্তমান উপজেলা কমিটি গঠণতন্ত্র পরিপন্থী ও জনবিছিন্ন আখ্যায়িত করে বাতিলের অভিযোগ তুলছেন, তাঁরা দলের উপজেলা, ইউনিয়ন এমনকি ওয়ার্ড কমিটির সদস্যও নয়।

 
তিনি আরও বলেন, জেলা পর্যায়ের একাধিক নেতা দলে বিশৃংখলা সৃষ্টির মাধ্যমে নিজেদের ব্যক্তিগত সুবিধা হাঁসিলে ব্যস্ত। তাঁরা ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে চায়। তবে দলের ত্যাগী নেতা-কর্মীরা ওই সকল সুবিধাবাদী নেতাদের সময়মত দাঁত ভাঙ্গা জবাব দেবে।
বিএনপি নেতা সাবেক সাংসদ মো. আবদুল গফুর ভূঁইয়ার সঙ্গে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাঁর বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।