ঝিনাইদহে শ্রমিক নেতাকে কুপিয়ে হত্যা, সব রুটে বাস চলাচল বন্ধ

ঝিনাইদহে বাস মিনিবাস শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক ও আ’লীগ নেতা আব্দুল গাফফার বিশ্বাসকে (৪৩) কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।

সোমবার ভোরে শহরের আরাপপুর এলাকায় অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা তাকে কুপিয়ে ফেলে রেখে যায়। পরচারীরা তাকে রক্তাক্ত অবস্থায় সদর হাসপাতালে নিলে ডাক্তার তাকে মৃত্যু ঘোষণা করে।

নিহত গাফ্ফার বিশ্বাস ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার নিয়ামতপুর গ্রামের মৃত বাবর আলী বিশ্বাসের ছেলে। বর্তমান ঝিনাইদহ শহরের আলহেরা পাড়ায় বসবাস করতেন।

এদিকে শ্রমিক নেতা গাফ্ফার হত্যার প্রতিবাদে সোমবার সকাল সাড়ে ৮টা থেকে ঝিনাইদহের উপর দিয়ে চলাচলকারী সবধরনের বাস চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। ফলে দুর-দুরান্তের যাত্রীরা ঝিনাইদহ শহরে আটকা পড়েছে।

হত্যাকারীদের গ্রেফতার না করা পর্যন্ত সব রুটে বাস চলাচল অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ থাকবে বলে বাস মিনিবাস শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি উজ্জল বিশ্বাস জানিয়েছেন।

বাস শ্রমিকদের একটি সূত্র জানায়, রোববার রাত ১০টার দিকে এক শ্রমিক গাফ্ফারকে মটরসাইকেলে করে আরাপপুর উকিলপাড়ায় নামিয়ে দিয়ে আসে। রাতে তিনি আর বাড়ি ফেরেননি। এরপর ভোরে তাকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়।

নিহতের স্ত্রী রোখসানা খাতুন বলেছেন, ঝিনাইদহ জেলা বাস মিনিবাস শ্রমিক ইউনিয়নের অর্ন্তকোন্দলের জের ধরেই তার স্বামীকে হত্যা করা হয়েছে।

ঝিনাইদহ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাহাবুদ্দীন জানান, ঝিনাইদহ বাস মিনিবাস শ্রমিক ইউনিয়নের নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক ছিলেন আব্দুল গাফফার বিশ্বাস।

তিনি আরো জানান,নেতৃত্ব নিয়ে দ্বন্দের কারণে তিনি সাময়িক বহিষ্কৃত হন। রোববার প্রশাসনের সহায়তা দুই পক্ষের মধ্যে শ্রমিক সমঝোতার মাধ্যমে গাফফার গ্রুপ ইউনিয়ন অফিসের কতৃত্ব ফিরে পান। প্রাথমিক ভাবে পুলিশ ধারণা করছে, শ্রমিক ইউনিয়নের দ্বন্দ্বের কারণে তাকে হত্যা করা হতে পারে।

গাফফার বিশ্বাসের লাশ ময়না তদন্তের জন্য ঝিনাইদহ সদর হাসপাতাল মর্গে রয়েছে। এ ব্যাপারে ঝিনাইদহ সদর থানায় মামলার প্রক্রিয়া চলছে।

এদিকে আব্দুল গাফফার বিশ্বাস হত্যার জের ধরে ঝিনাইদহে বিবাদমান বাস শ্রমিকদের দুটি গ্রুপের মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে শহরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।