দক্ষিণকেরানীগঞ্জের আলমগীর হত্যায় ৭ জনকে যাবজ্জীবন

দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের চাঞ্চল্যকর আলমগীর হোসেন মিস্টার হত্যা মামলার রায়ে ৭ আসামির সকলকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। বুধবার ঢাকার ৪ নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক এবিএম নিজামুল হক এ রায় ঘোষণা করেন।

যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্তরা হচ্ছেন- জাহাঙ্গীর, মাইদুল, মাসুদ রানা, সালাহউদ্দিন, জসিম উদ্দিন, সোলেমান (১) ও সোলেমান (২)।

আসামিদের মধ্যে জাহাঙ্গীর, মাইদুল, মাসুদ রানা, সালাহউদ্দিন ও সোলেমান (১) জামিনে ছিলেন। জসিম উদ্দিন কারাগারে আটক আছেন। আসামি সোলেমান (২) পলাতক।
রায় ঘোষণাকালে জামিনপ্রাপ্ত ৫ জন আদালতে হাজির ছিলেন এবং কারাগারে আটক একজনকে হাজির করা হয়।

দণ্ডপ্রাপ্ত ৬ জনকে পরে কারাগারে পাঠিয়ে দেওয়া হয়।

সংশ্লিষ্ট আদালতের বিশেষ পিপি এসএম রফিকুল ইসলাম রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

রায় ঘোষণার আগে চার্জশিটের ১৮ জন সাক্ষীর মধ্যে ১৭ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়েছে।

মামলার নথি থেকে জানা গেছে, পূর্ব শক্রতার জের ধরে ২০১০ সালের ১৩ নভেম্বর দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জের ভাওয়ার ভিটিতে আলমগীর হোসেন মিস্টারকে গুরুতর আহত করে আসামীরা। ১৭ নভেম্বর ঢাকার ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান মিস্টার।

এ ঘটনায় নিহতের ভাই শাহাবুদ্দিন বাদী হয়ে ঢাকার দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

খুনের বর্ণনা দিয়ে আসামি জসিম ২০১১ সালের ১৮ জুন ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে জবানবন্দি দেন। জবানবন্দিতে আসামি বলেন যে, ভিকটিম মিস্টারের মোবাইলের ব্যবসা ছিল। চোরাই মোবাইল বিক্রির সময় ভিকটিম আসামিদের চিনে ফেললে তাদের সঙ্গে শক্রতার সৃষ্টি হয়। এরপরই তারা মিষ্টারকে খুনের পরিকল্পনা করেন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।