হোয়াইক্যংয়ে সড়ক দূর্ঘটনায় মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে এক মহিলা

টেকনাফের হোয়াইক্যং লম্বাবিল গ্রামে চিকিৎসার অভাবে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে পরিত্যাক্ত মনোয়ারা বেগম (২৫)। স্বামী রশিদ আহমদ দীর্ঘদিন থেকে দ্বিতীয় বিয়ে করে নিখোঁজ রয়েছে।  জানা গেছে, গত ২৭ মার্চ হোয়াইক্যংয়ের বালুখালী এলাকায়  মাহেন্দ্র গাড়ীতে সড়ক দূঘটনায় গুরুতর আহত হয়ে কক্সবাজার হাসপাতাল হয়ে চট্টগ্রাম মেডিকেল হাসপাতালে দীর্ঘদিন চিকিৎসাধীন ছিল। মাহেন্দ্র গাড়ী (অটো টেক্সি) মালিক কান্জরপাড়ার মোঃ ইউনুছ তার গাড়ীতে আহত মহিলাটিকে চিকিৎসা খরচ না দেয়ায়  টাকার অভাবে চিকিৎসায় অক্ষম হয়ে গত ১৯ মে নিজ বাড়ীতে নিয়ে আসে তার আত্মীয় স্বজন।

 

এলাকার লোকজন মাহেন্দ্র টেক্সি মালিকের সাথে যোগাযোগ করা হলে নিজের ক্ষমতা দেখিয়ে কোন খরচ দেবেনা বলে জানিয়ে দেন। ২১ মে সরেজমিন দেখা যায়, দূর্ঘটনায় কবলিত মহিলাটি শয্যাশায়ী তার পাশে বড় মেয়ে সেলিনা আক্তার (১৫) বসে মাকে হাত পাখা দিয়ে বাতাস করছে। দশ বছরের ছেলে জুয়েল কেদেঁ কেঁদে তার মাকে সুস্থ করে দিতে  এ প্রতিবেদকের প্রতি আকুল আবেদন জানান। এলাকাবাসী টাকা তুলে খাবার ও প্রাথমিক চিকিৎসার সাহায্য চালিয়ে যাচ্ছেন। তার নিকাটাত্মীয়দের  দাবী মাহেন্দ্র মালিক মোঃ ইউনুছ সঠিকভাবে চিকিৎসা চালিয়ে নিয়ে গেলে আজ তাকে মৃত্যুর কোলে পড়তে হতোনা।

 

ওই মহিলাটির মৃত্যু হলে তার দায় দায়িত্ব গাড়ীর মালিককে নিতে হবে। চিকিৎসা খরচ দিতে কালক্ষেপন করলে স্থানীয় জনতা গাড়ীটি আটক করে হোয়াইক্যং পুলিশকে তুলে দেয়। গাড়ীর মালিক মোঃ ইউনুছের সাথে যোগাযোগ করা হলে সে চিকিৎসা খরচ না দিয়ে একেবারে ১০ হাজার বা ২০ হাজার এককালীন দিয়ে নিষ্পত্তি করতে রাজি বলে জানান। এ ব্যাপারে হোয়াইক্যং পুলিশ ফাঁড়ীর এএসআই জয়নাল আবেদীন জানান, ভিকটিমের ভাই অভিযোগ দায়ের করেছে। আমরা পরবর্তী পদক্ষেপ নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছি।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।