ফেনীর ফুলগাজ’র একরাম হত্যার ‘মূল পরিকল্পনাকারী’ জিহাদ চৌধুরী ৮ দিনের রিমান্ডে

উপজেলা চেয়ারম্যান একরামুল হক একরাম হত্যার ‘মূল পরিকল্পনাকারী’  উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জিহাদ চৌধুরীকে আট দিনের রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ।

সোমবার ফেনীর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট খাইরুল আমীন এ আদেশ দেন।

রোববার সন্ধ্যা ৬টার দিকে ফেনী সদর থানার ওসি মাহবুব মোর্শেদের নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে তাকে শহরতলীর বারাহীপুর থেকে গ্রেফতার করা হয়।

এর আগে একরাম হত্যায় জড়িত থাকার সন্দেহে ঢাকা থেকে গ্রেফতার আটজন, কাউন্সিলর আবদুল্লাহিল শিবলুসহ মোট ১৩ জনকে রোববার রিমান্ডে নেয় পুলিশ।

যাদের মধ্যে রয়েছেন-  হত্যার অন্যতম ‘পরিকল্পনাকারী’ আবিদুল ইসলাম ওরফে আবিদ, জাহিদুল ইসলাম ওরফে সৈকত, চৌধুরী মো. নাফিজ উদ্দিন ওরফে অনিক, কাজী শানান মাহমুদ, মো. সাজ্জাদুল ইসলাম পাটোয়ারী ওরফে সিফাত, মো. শাহজালাল উদ্দিন ওরফে শিপন, জাহিদ হোসেন, হেলাল উদ্দিন ও কাউন্সিলর আবদুল্লাহিল শিবলুকে আটদিনে রিমান্ড নেয়া হয়।

এছাড়া ফেনী থেকে গ্রেফতার হওয়া আনোয়ার, আলাউদ্দীন, বেলাল ও ইকবালকে একইদিনে পাঁচদিনের রিমান্ড নেয় পুলিশ।

প্রসঙ্গত, গত মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে ফেনী শহরের ব্যস্ততম একাডেমি সড়কে দুর্বৃত্তরা উপজেলা চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা একরামুল হককে লক্ষ্য করে গুলি চালানোর পর তাকে বহনকারী গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই পুড়ে মারা যান তিনি।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।