টেকনাফে হতদরিদ্রদের টাকা যাচ্ছে প্রকল্প কর্মকর্তা সভাপতির পকেটে

টেকনাফের হ্নীলা কৃষি ব্যাক ম্যানেজারের বিরুদ্ধে হত দরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচির  টাকা প্রদানের ক্ষেত্রে গুরুতর অনিয়ম ও দূনীর্তির অভিযোগ পাওয়া গেছে। হতদরিদ্রদের লাখ লাখ টাকা চলে যাচ্ছে কতিপয় প্রকল্প বাস্তবায়নকারী- সভাপতির পকেটে। জানা গেছে,  ২০১৩-১৪ অর্থ বছরে হতদরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচি প্রকল্প ২য় পর্যায়ে ৩ মে থেকে  নামে মাত্র  শুরু হলেও প্রকল্প বাস্তবায়নকারীদের সহযোগিতায়  বিভিন্ন অনিয়ম ও দূর্নীতি করে ২ সপ্তাহ পার করেছে প্রকল্প সভাপতিরা। এ ক’দিন কাগজে কলমে কাজ দেখিয়ে ২৮ মে   প্রকৃত শ্রমিককে টাকা না দিয়ে ৩০ হাজার টাকার বিনিময়ে প্রকল্প সভাপতিদের হাতে টাকা দিয়ে দেন  হ্নীলা কৃষি ব্যাংক ম্যানেজার প্রিয়তোষ দেব।

 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সংশ্লিষ্ট এক অফিসার বলেন, কোন কাজ না করে ও  বৈধ কোন শ্রমিক ছাড়া বিভিন্ন স্বাক্ষর জালিয়াতি করে ৫ শত ৬০ জন শ্রমিকের জন্য  ৯ লাখ ৮০ হাজার টাকা উত্তোলন করে। এ টাকা থেকে  রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের  জন্য ৪ লাখ টাকা বরাদ্দ, অন্যান্য খরচ ৫ হাজার টাকা বাদ দিয়ে হ্নীলা কৃষি ব্যাংক ম্যানেজারকে ৩০ হাজার টাকা দিয়ে  ম্যানেজ করে প্রতি মেম্বারে ৬৯ হাজার টাকা করে হাতিয়ে নেয়। ওই প্রকল্প শুরু হওয়ার পর থেকে অনিয়ম ও দূর্নীতি বিষয়ে অনেক সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশ করলেও টনক নড়েনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের। প্রকল্পে অনিয়ম ও লুটপাটের কারণে  আওয়ামীলীগ সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হওয়ায় গত ২৭ মে সংবাদ সম্মেলনও করেন টেকনাফের প্রতিটি ইউনিয়নের আওয়ামীলীগের সভাপতি সম্পাদক।

 

খোজঁ খবর নিয়ে জানা যায়, টেকনাফের প্রতিটি ইউনিয়নে কতিপয় প্রকল্প বাস্তবায়নকারীদের ম্যানেজ করে প্রকল্পের লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। এ ব্যাপারে হ্নীলা কৃষি ব্যাংক ম্যানেজার প্রিয়তোষ দেব সভাপতিদের টাকা দেওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, টেকনাফের অন্যান্য ব্যাংকে অনুসরণ করার পর টাকা দেওয়া হয়েছে।  টাকা নেওয়ার  ব্যাপারে অনেকে অভিযোগ দিতে পারে বলে জানান তিনি। বিভিন্ন অভিযোগ নিয়ে জানতে চাইলে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা জহিরুল ইসলাম জানিয়েছেন  তিনি কিছুই জানেনা।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।