কক্সবাজারে ১ম দফায় ১৮৭১৫ নতুন ভোটার

কক্সবাজার জেলার তিন উপজেলায় ১৮ হাজার ৭১৫ জন নতুন ভোটারের তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে। ভোটার তালিকা হালনাগাদের প্রথম ধাপে এসব উপজেলায় আগের ভোটার তালিকা থেকে মৃত ভোটারদের নাম বাদ দেওয়ার জন্য আবেদন পাওয়া গেছে ১৬২০ টি।

 
কক্সবাজার জেলা নির্বাচন অফিস সুত্রে জানা গেছে, কুতুবদিয়া উপজেলায় তথ্য সংগ্রহের পাশাপাশি ভোটারদের ছবি তোলার কাজও ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে। তবে মহেশখালী ও টেকনাফ উপজেলায় তথ্য সংগ্রহের কাজ শেষ হলেও ছবি তোলার কাজ এখনো বাকি আছে। এবার ৫ শতাংশ ভোটার বাড়তে পারে- এমন ধারণা নিয়ে নির্বাচন কমিশন গত ১৫ মে থেকে ভোটার হালনাগাদ কার্যক্রম শুরু করে। আগের সময়সূচি অনুসারে ১৫ থেকে ২৪ মে পর্যন্ত জেলার কুতুবদিয়া, মহেশখালী ও টেকনাফ উপজেলায় বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোটার তথ্য সংগ্রহ করার কথা ছিল। কিন্তু নিবন্ধন ফরমে ত্র“টি ও প্রচার-প্রচারনায় ঘাটতির কারণে পরে ওই সময়সীমা ২৮ মে পর্যন্ত বাড়ানো হয়।

 
নির্বাচন অফিস সুত্র আরো জানায়, কুতুবদিয়া উপজেলায় সর্বমোট ৪ হাজার ২৫০ জন নতুন ভোটারের তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে। এর মধ্যে পুরুষ ২ হাজার ৫৪৬ জন এবং নারী এক হাজার ৭০৪ জন। এছাড়া কুতুবদিয়ায় ৫৭০ জন মৃত ভোটারের নাম বাদ দেওয়ার আবেদন পাওয়া গেছে। ওই উপজেলায় ভোটার স্থানান্তরের আবেদন পাওয়া গেছে ১২৩ জনের। টেকনাফ উপজেলায় নারী-পুরুষ মিলিয়ে সর্বমোট ৬ হাজার ৩১০ জনের তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে। মৃত ভোটারের নাম বাদ দেওয়ার জন্য আবেদন পাওয়া গেছে ২৩২ জনের। অন্যদিকে মহেশখালী উপজেলায় ৮ হাজার ৫৯৫ জন নতুন ভোটারের তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে। এছাড়া ওই উপজেলায় আগের ভোটার তালিকা থেকে মৃত ভোটারের নাম বাদ দেওয়ার আবেদন পাওয়া গেছে ৮১৮ জনের।

 
জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা নুরুল হাসান ভুঁইয়া বলেন, ‘বিশেষ এলাকা হিসেবে জেলায় সর্বোচ্চ সতর্কতার সাথে ভোটার তালিকা হালনাগাদ করা হচ্ছে। কিছু-কিছু এলাকায় রোহিঙ্গাসহ বিদেশী নাগরিকদের ভোটার হওয়ার প্রবণতা ল্য করা গেছে। তবে শেষ পর্যন্ত তারা সফল হতে পারছে না। আবার কেউ-কেউ বয়স বাড়িয়ে ভোটার হতে চায়-এমন অভিযোগও কানে আসে। সেেেত্র বয়সের প্রমানসরূপ যেসব কাগজপত্র দরকার সেগুলো ব্যাপকভাবে যাচাই-বাছাই করছি আমরা। কাগজপত্র ঠিকঠাক থাকলেই কেবল তাদের হালনাগাদ ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হচ্ছে।’

 
নির্বাচন কমিশন সচিবালয় সূত্র জানিয়েছে, দ্বিতীয় ধাপে কক্সবাজারের উখিয়া, চকরিয়া ও পেকুয়া উপজেলায় ভোটার তালিকা হালনাগাদ করা হবে। ওই তিন উপজেলায় ১৫ থেকে ২৪ জুন পর্যন্ত চলবে তথ্য সংগ্রহের কাজ। ১৮ জুলাই থেকে ১৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত চলবে নিবন্ধন কার্যক্রম। তৃতীয় ও সর্বশেষ ধাপে কক্সবাজার সদর ও রামু উপজেলায় হালনাগাদ চলবে। ওই দুই উপজেলায় ১ সেপ্টেম্বর থেকে ১০ সেপ্টম্বর পর্যন্ত বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোটারদের তথ্য সংগ্রহ করা হবে। নিবন্ধন করা হবে ১৮ সেপ্টেম্বর থেকে ১৫ নভেম্বর পর্যন্ত।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।