জয়পুরহাটে সন্ত্রাসী হামলায় নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান নিহত

জয়পুরহাট সদর উপজেলার দৃর্বৃত্তদের হামলায় ভাদসা ইউনিয়ন পরিষদের নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান একে আজাদ চৌধুরী (৫০) ৭ দিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে অবশেষে আত্ত্বীয় স্বজন ও হাজার হাজার কর্মী সমর্থকদের কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে চলে গেলেন।

 

আজ রবিবার ভোর ৬ টায়  ঢাকার বেসরকারী একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। এর আগে তিনি জয়পুরহাট সদর উপজেলার গোপালপুর ও কোঁচকুড়ি গ্রামের মাঝ খানের রাস্তায় দূর্বৃত্তদের গুলিতে গুরুত্বর আহত হন।

 

জানা যায়, গত ৩১ শে মার্চ দ্বিতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হিসাবে বিপুল ভোটে জয়লাভ করেন আবুল কালাম আজাদ।

 

তিনি গত ৪ই জুন শনিবার রাত ১০ টার সময় প্রতিবেশি পবিত্র কুমার বর্মণ কে সঙ্গে নিয়ে সদর উপজেলার দূর্গাদহ বাজার হতে কোঁচকুড়ী গ্রামের নিজ বাড়ীতে যাবার সময় গোপালপুর নামক স্থানে পৌছিলে একদল মুখোশধারী সন্ত্রাসী তাদের গতিরোধ করে মাথায় হাতে এ্যালোপাথারী কোপায় এবং একে আজাদের পেটে গুলি করে। তাদের চিৎকারে আদিবাসী নয়ন চন্দ্র নামের একজন এগিয়ে এলে তাকে বুকে গুলি করে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়।

 

এলাকাবাসী দুজনকে মূর্মশ অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে জয়পুরহাট আধুনিক হাসপাতালে পরে বগুড়ার শহীদ জিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে তাদের অবস্থার অবনতি হলে রাতেই হেলিকাপ্টার যোগে ঢাকার একটি বেসরকারী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে এতদিন তিনি আই সি ও তে  ছিলেন। দীর্ঘ ৭দিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে আজ ভোরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হলো।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।