জ্বীনের রাণী সহ পিতা-পুত্র গ্রেফতার - খবর তরঙ্গ
শিরোনাম :
রাজাপুরে জ্বীনের ভয় দেখিয়ে ৪ লাখ ২০ হাজার টাকা ও সাড়ে ১১ ভরি সোনা হাতিয়ে নেয়ার মামলায়

জ্বীনের রাণী সহ পিতা-পুত্র গ্রেফতার



মোঃ আঃ রহিম রেজা, ঝালকাঠি প্রতিনিধি, (খবর তরঙ্গ ডটকম)

ঝালকাঠির রাজাপুরে জ্বীনের ভয় দেখিয়ে ৪ লাখ ২০ হাজার টাকা ও সাড়ে ১১ ভরি সোনা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগের মামলায় মেয়ে জ্বীনের রাণী আসিয়া খাতুন ও তার পিতা মন্নাফ সিকদার এবং ভাই কাওসার সিকদারকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।


শুক্রবার বিকেলে গ্রেফতারকৃতদের ঝালকাঠি আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠিয়েছে পুলিশ। রাজাপুর উপজেলার মনোহরপুর গ্রামের সাবেক স্কুল শিক্ষক মৃত মোকসেদ আলীর স্ত্রী আম্বিয়া খাতুন বাদি হয়ে ৫ জনের নামে বৃহস্পতিবার রাতে রাজাপুর থানায় এ মামলা করলে পুলিশ রাতেই ৩ আসামীকে গ্রেফতার করে। অপর আসামী ফরিদ সিকদার ও ইব্রাহিমকেও জ্বীনের রাণী আসিয়া খাতুনের ভাই।


মামলা সূত্রে জানা গেছে, মামলার ১ নম্বর আসামী আসিয়া খাতুন নিজেকে কোরআনের হাফেজ দাবি করে বাবা মন্নাফের বাড়িতে এলাকার মহিলাদের নিয়ে কয়েক বছর ধরে তালিমের মাধ্যমে কোরআন শিক্ষাসহ বিভিন্ন হাদিসের মাধ্যমে ইসলামের দাওয়াত প্রচার করে এবং মাঝে মধ্যে তাহার কাছে জ্বীনের কথা বলে বিশ্বাস স্থাপন করে নানা অযুহাতে টাকা ও সোনার হাতিয়ে নিতে শুরু করে। পরবর্তীতে জ্বীনের ভয় দেখিয়েও টাকা ও সোনা হানিয়ে নেয়। মামলার বাদি আম্বিয়া খাতুনকে বিভিন্নভাবে জ্বীনের ভয়ভীতি দেখিয়ে প্রতারনার মাধ্যমে বিভিন্ন সময় জ্বীনের রাণী হিসেবে এলাকায় পরিচিত আসিয়া খাতুন ৪ লাখ ২০ হাজার টাকা এবং সাড়ে ১১ ভরি সোনার গহনা হানিয়ে নেয়। ভুক্তভোগী আম্বিয়া খাতুনের ছেলে অভিেেযাগ করে জানান. তার মা আম্বিয়া খাতুন সহজ সরল হওয়ায় বিভিন্নভাবে জ্বীনের ভয়ভীতি দেখিয়ে প্রতারনার মাধ্যমে আসামী আসিয়া খাতুন ৪ লাখ ২০ হাজার টাকা এবং সাড়ে ১১ ভরি সোনার গহনা হানিয়ে নেয়।


এছাড়া আসামীরা বাদিপক্ষের পরিবারের লোকজনকে জ্বীনের মাধ্যমে পাগল করিয়া রাস্তায় ঘুরাইবে বলে এবং খুন জখমের হুমকি দেয়। এভাবে এলাকার বিভিন্ন লোকজনের কাছ থেকে টাকা ও সোনার গহন হাতিয়ে নিয়েছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি। কিন্তু জ্বীনের ভয়ে কেহই মুখ খুলছেন না। তবে জ্বীনের রাণী আসিয়া খাতুনের ভাই মামলার ৪ নম্বর আসামী মামলায় অভিযুক্ত ফরিদ সিকদার দাবি করেন জানান, প্রতিপক্ষের কাছ থেকে সুদে নেয়া ২০ হাজার টাকা লাভসহ ফেরৎ দেয়া হয়েছে, তালিমে কোরআন না পরানোয় ক্ষিপ্ত হয়ে পূর্ব শক্রতা ও পারিবারিক বিরোধরে জের ধরে মিথ্যা মামলা দিয়ে তার পরিবারের ৫ সদস্যকে হয়রানি করা হচ্ছে। তাদের নামে জ্বীন হাজিরের নামে মিথ্যা অপবাদ দেয়া হচ্ছে। রাজাপুর থানার ওসি জাহিদ হোসেন জানান, মামলার ৩ আসামীকে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে এবং বাদি আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।


জেলা এর অন্যান্য খবরসমূহ
ঝালকাঠি এর অন্যান্য খবরসমূহ