মালয়েশিয়ার ঘোষণাকে ‘আইওয়াশ’ বলে দাবি করেছেন সচিব

বাংলাদেশিসহ বিদেশি শ্রমিক নিয়োগের ওপর মালয়েশিয়া যে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে তাতে সংশয় প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশের একজন কর্মকর্তা। বাংলাদেশ থেকে শ্রমিক নেয়ার ব্যাপারে বৃহস্পতিবার ঢাকা-কুয়ালালামপুর চুক্তি স্বাক্ষরের পরদিনই মালয়েশিয়ার উপপ্রধানমন্ত্রী আহমদ জাহিদ হামিদি জানান যে তার দেশ বাংলাদেশিসহ বিদেশি শ্রমিক নেয়া বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এ সিদ্ধান্ত অবিলম্বে কার্যকর হবে বলেও জানান তিনি।

 

হামিদি শুক্রবার বলেন, ‘সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে বাংলাদেশিসহ সব বিদেশি শ্রমিক নেয়া বন্ধ রাখা হবে।’

 

তবে বাংলাদেশে প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব বেগম শামসুন্নাহার মালয়েশিয়ার ঘোষণাকে ‘আইওয়াশ’ বলে দাবি করেছেন এবং আশা প্রকাশ করেছেন, বৃহস্পতিবার স্বাক্ষরিত চুক্তি মোতাবেক বাংলাদেশ থেকে শ্রমিক নেবে মালয়েশিয়া সরকার।

 

ঢাকা টিব্রিউনকে তিনি বলেন, ‘ মালয়েশিয়ার যেসব গোষ্ঠী বিদেশি শ্রমিক নেয়ার বিরোধিতা করছে তাদের শান্ত করতেই মালয়েশিয়া সরকার এ ঘোষণা দিয়েছে।’

 

পুত্রজায়ার ঘোষণাকে ‘আইওয়াশ’ বলে দাবি করেন ভারপ্রাপ্ত সচিব। তিনি জানান, মালয়েশিয়া সরকার শ্রমিক নেয়া বন্ধ রাখার ব্যাপারে সরকারিভাবে বাংলাদেশকে কিছু জানায়নি।

 

এদিকে আগামী ৫ বছরে মালয়েশিয়া বাংলাদেশ থেকে ১৫ লাখ শ্রমিক নেবে বলে যে দাবি ঢাকার পক্ষ থেকে করা হয়েছিল তাও নাকচ করে দিয়েছেন মালয়েশিয়ার মানবসম্পদমন্ত্রী রিচার্ড রায়ট।

 

ঢাকায় চুক্তি স্বাক্ষরের পরপরই নিজ দেশে ফিরে গিয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ১৫ লাখ শ্রমিক নেয়ার খবর সঠিক হয়। প্রকৃত ব্যাপার হচ্ছে, বিদেশে কাজ করতে আগ্রহী বাংলাদেশে এমন নিবন্ধিত শ্রমিকের সংখ্যা ১৫ লাখ। তারা মালয়েশিয়া, সৌদি আরবসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে কাজ করতে যেতে চায়।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।