বাকৃবিতে ছাত্রলীগের ‘টর্চার সেল’

ছাত্রলীগ কর্মী সায়াদ বিন মোমতাজকে পিটিয়ে হত্যার প্রতিবাদে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে চলছে আন্দোলন। ক্ষমতাসীন দলের ছাত্র সংগঠনের বিরুদ্ধে অভিযোগ এই প্রথম নয়। দীর্ঘদিন ধরেই অভিযোগ, ছাত্রলীগ কর্মীরা শিক্ষার্থীদের ওপর নানাভাবে নির্যাতন চালায়। আবাসিক হলের অতিথি কক্ষগুলোকে ব্যবহার করা হয় নির্যাতন কেন্দ্র হিসেবে। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ করেও প্রতিকার পাওয়া যায়নি।

মঙ্গলবার বেসরকারি টেলিভিশন ইন্ডিপেন্ডেন্টের এক প্রতিবেদনে এসব কথা জানানো হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রতিটি আবাসিক হলেই আছে এমন গেস্ট রুম। সাধারণ শিক্ষার্থীদের আত্মীয় স্বজন বা দর্শনার্থীদের জন্য এসব রুম। কিন্তু শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, এসব রুম ব্যবহার হয় প্রতিপক্ষ ছাত্রদের নির্যাতনের কাজে। প্রতিপক্ষ রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীদের এখানে নিয়মিত মারধর করার অভিযোগ রয়েছে। ভয়ে কেউ প্রকাশ্য মুখ খুলতে চায় না।

ইন্ডিপেন্ডেন্ট জানায়, প্রতি রাতে এখানে ছাত্রলীগের নেতাদের সামনে হাজিরা দিতে হয় সাধারণ ছাত্রদের। তাদের ওপর চলে মানসিক নির্যাতন। গেস্টরুমে সাধারণ ছাত্রদের নিয়মিত হাজিরা দেয়ার বিষয়টি স্বীকার করেন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরাও।

নির্যাতনের ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে অভিযোগ করেও কোনো প্রতিকার পাওয়া যায় না বলে ছাত্রদের অভিযোগ।

১৯৮০ সাল থেকে এ পর্যন্ত কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে অন্তত ১৫ জন শিক্ষার্থী বিভিন্ন ঘটনায় নিহত হয়েছে। কিন্তু আজ পর্যন্ত একটি হত্যাকাণ্ডেরও বিচার হয়নি।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।