বাংলা চলচিত্রের এক উজ্বল নক্ষত্রের নাম সালমান শাহ - খবর তরঙ্গ
শিরোনাম :

বাংলা চলচিত্রের এক উজ্বল নক্ষত্রের নাম সালমান শাহ



(খবর তরঙ্গ ডটকম)

শামীম ইবনে মাজহার,নিউ্জ অনলাইন ১৯  নভেম্বর (খবর তরঙ্গ ডটকম)- বাংলা চলচিত্রের এক উজ্বল ক্ষনজন্মা নক্ষত্রের নাম। তিনি ১৯ সেপ্টেম্বর ১৯৭০ সালে জন্ম গ্রহন করেন। যিনি ১৯৯৬ সালের ০৬ সেপ্টেম্বর আত্মহত্যা করেন। কিন্তু তার পরিবারকর্গের দাবী ছিল এটা আত্মহত্যা নয়। সালমানকে হত্যা করা হয়েছে। সালমানের আসল নাম শাহরিয়ার চৌধুরী ইমন। বাংলা চলচিত্রের একটি দুর্যোগকালীন সময়ে সালমানশাহের আগমন ঘটে। ১৯৯৩ সালে সোহানুর রহমান সোহান পরিচালিত কেয়ামত থেকে কেয়ামত ছবির মাধ্যমে তার চলচিত্রে আগমন। এ ছবিটিকে ভারতীয় ফিল্ম কায়ামত সে কায়ামত তাক্ এর পুণ:নির্মান বলা যেতে পারে-যেখানে প্রধান চরিত্র রূপদান করেছিলেন আমির খান এবং জুহি চাওলা। অপরদিকে বাংলা চলচিত্রে প্রধান চরিত্রে ছিলেন সালমান শাহ্ এবং মৌসুমি। কেয়ামত থেকে কেয়ামত এর পর বেশ কয়েকটি ছবি সালমান মৌসুমি করেন সেগুলো ব্যবসা সফলও হয় । কিন্তু নিজেদের দন্দের কারনে পরবর্তীতে সালমান এবং মৌসুমি উভয়-ই এক সাথে কাজ করা থেকে বিরত থাকেন। এতে করে সালমানের সাথে পছন্দসই নায়িকা পাওয়া চিত্র পরিচালকদের জন্য কঠিন হয়ে পড়লেও সে অবস্থাটা বেশিদিন স্থায়ী হয়নি তখনকার নতুন নায়িকা শাবনুরের কারনে। সালমানের সাথে সাবনুরের প্রথম ছবি মুক্তির পরই দর্শক সালমান শাবনুর জুটিকে বেশ ভালভাবেই গ্রহণ করে। যার ফলে পর পর সালমান শাবনুর জুটির মুক্তি পাওয়া ছবিগুলো হিট থেকে সুপার হিট ছবির লিস্টে চলে আসতে থাকে।সালমান শাবনুর জুটির ব্যবসা সফল ছবিগুলোর মধ্যে তোমাকে চাই,জীবন সংসার,সপ্নের ঠিকানা,আনন্দ অশ্র“,সপ্নের নায়ক উল্লেখযোগ্য । সালমান তার অভিনয় জীবনে অনেক নায়িকার সাথে অভিনয় করলেও তার সফল জুটি গড়ে ওঠে শাবনুরের সাথে।চলচিত্রে আগমনের পূর্বে সালমানশাহ্ মডেলিং করেছিলেন।তিনি টিভি নাটকেও অভিনয় করেছিলেন। তার মূল নামটি ছিল শাহরিয়ার কবির ইমন যা তার চলচিত্রে পদার্পনের পরে পরিবর্তীত হয়।তিনি যেমন ছিলেন সুদর্শন তেমন ছিল তার অভিনয় প্রতিভা। তার চলচিত্রে আগমনের সাথে সাথে বাংলা চলচিত্র শিল্প একটি শক্ত অবস্থানে দাড়িয়ে যায়।কিন্তু বাংলা চলচিত্র জগতের এই যুবরাজ তার রাজত্যের সম্পূর্ণ অধিকার গ্রহণ করবার আগেই পৃথিবী থেকে বিদায় নেন। ১৯৯৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর বাংলা চলচিত্রের হার্টথ্রুব নায়ক সালমান শাহের মৃত্যু হয়(যদিও তার পরিবারকর্গের দাবী ছিল তাকে হত্যা করা হয়েছে।)। তার মৃত্যুর কারন আজ অবধি প্রশ্নবিদ্ধ। তার অকাল প্রয়াণে বাংলা চলচিত্র যে ক্ষতির সম্মুখিন হয়েছে তা পুরন হবার নয়।

সালমান শাহ’র সংক্ষিপ্ত কিছু তথ্য
বাবা —- কমর উদ্দিন চৌধুরী
মা —— নীলা চৌধুরী
স্ত্রী —— সামিরা একজন উপজাতি
প্রথম চলচ্চিত্র : কেয়ামত থেকে কেয়ামত
শেষ ছবি : বুকের ভেতর আগুন
প্রথম নায়িকা : মৌসুমী
সর্বাধিক ছবির নায়িকা : শাবনূর (১৪টি)
মোট ছবি : ২৭টি
বিজ্ঞাপনচিত্র : মিল্ক ভিটা, জাগুরার, কেডস, গোল্ড স্টার টি, কোকাকোলা, ফানটা।
ধারাবাহিক নাটক : পাথর সময়, ইতিকথা
একক নাটক : আকাশ ছোঁয়া, দোয়েল, সব পাখি ঘরে ফেরে, সৈকতে সারস, নয়ন, স্বপ্নের পৃথিবী।
শখ : দাবা ও ক্রিকেট খেলা,
প্রিয় গায়ক: হেমন্ত, আজম খান,
প্রিয় নায়ক : অমিতাভ বচ্চন ও শাহরুখ খান,
প্রিয় রং : কালো,
প্রিয় খাবার : আইসক্রিম ও ফাস্টফুড,
প্রিয় পোশাক : জিন্স আর টি শার্ট
প্লে-ব্যাক : প্রেমযুদ্ধ এবং ঋণ শোধ।
পুরস্কার : ইয়ুথ অ্যান্ড সোস্যাল ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন তাকে ১৯৯৫ সালের শ্রেষ্ঠ নায়ক হিসেবে পুরস্কৃত করে।
…………………………………………..
তার অভিণীত ছায়াছবি সমূহঃ
,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,
ছবির নাম এবং ছবি মুক্তির তারিখ নিন্ম তালিকাবদ্ধঃ
,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,

কেয়ামত থেকে কেয়ামত —- ১৯৯৩ সালের ২৫ মার্চ
তুমি আমার —- ১৯৯৪ সালের ২২ মে
অন্তরে অন্তরে —– ১৯৯৪ সালের ১০ জুন
সুজন সখী —— ১৯৯৪ সালের ১২ আগস্ট
বিক্ষোভ —— ১৯৯৪ সালের ৯ সেপ্টেম্বর
স্নেহ ———- ১৯৯৪ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর
প্রেমশক্তি ——– ১৯৯৪ সালের ২৩ ডিসেম্বর
কন্যাদান ———- ১৯৯৫ সালের ৩ মার্চ
দেনমোহর ———- ১৯৯৫ সালের ৩ মার্চ
স্বপ্নের ঠিকানা ——— ১৯৯৫ সালের ১১ মে
আঞ্জুমান —————— ১৯৯৫ সালের ১৮ আগস্ট
মহামিলন ————– ১৯৯৫ সালের ২২ সেপ্টেম্বর
আশা ভালোবাসা ——- ১৯৯৫ সালের ১ ডিসেম্বর
বিচার হবে ———— ১৯৯৬ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি
এই ঘর এই সংসার ——– ১৯৯৬ সালের ৫ এপ্রিল
প্রিয়জন —————– ১৯৯৬ সালের ১৪ জুন
তোমাকে চাই ——- ১৯৯৬ সালের ২১ জুন
স্বপ্নের পৃথিবী ——— ১৯৯৬ সালের ১২ জুলাই
জীবন সংসার ———– ১৯৯৬ সালের ১৮ অক্টোবর
মায়ের অধিকার ——– ১৯৯৬ সালের ৬ ডিসেম্বর
চাওয়া থেকে পাওয়া ——— ১৯৯৬ সালের ২০ ডিসেম্বর
প্রেম পিয়সী ——— ১৯৯৭ সালের ১৮ এপ্রিল
স্বপ্নের নায়ক ———- ১৯৯৭ সালের ৪ জুলাই
শুধু তুমি ———— ১৯৯৭ সালের ১৮ জুলাই
আনন্দ অশ্রু ——— ১৯৯৭ সালের ১ আগস্ট
বুকের ভেতর আগুন ————- ১৯৯৭ সালের ৫ সেপ্টেম্বর
সত্যের মৃত্যু নেই ———— অসমাপ্ত।
……………………………………………………………………………..
……………………………………………………………………………..

সালমান শাহ্ অনেক গুণী পরিচালকের সাথে কাজ করেছেন। তারা হলেন_সোহানুর রহমান সোহান, জহিরুল হক, মহাম্মদ হান্নান, গাজী মাজহারুল আনোয়ার, জীবন রহমান, শিবলি সাদিক, শফি বিক্রমপুরী, শাহ আলম কিরণ, মো. নুরুল ইসলাম পারভেজ, দেলোয়ার জাহান ঝন্টু, হাফিজ উদ্দিন, তমিজ উদ্দিন রিজভি, দিলীপ সোম, মালেক আফসারি, রানা নাসের, মতিন রহমান, বাদল খন্দকার, ছটকু আহমেদ, জাকির হোসেন রাজু, নাসির খান, এমএম সরকার, রেজা হাসমত, কাজী মোর্শেদ।

যেসব ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হয়েছিলেন কিন্তু কাজ করতে পারেননি_শেষ ঠিকানা, প্রেমের বাজী, আগুন শুধু আগুন, কে অপরাধী, মন মানে না, ঋণ শোধ, তুমি শুধু তুমি।

যেসব নায়িকা তার অভিনয় করেছেন – মৌসুমী, শাবনুর, শাবনাজ, শাহনাজ, লিমা, শিল্পী, শ্যামা, সোনিয়া, বৃষ্টি, সাবরিনা ও কাঞ্চি।


পূর্বের সংবাদ
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০