রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্বের স্বীকৃতি দেয়ার আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘ

নিউজ ডেস্ক, ডিসেম্বর ২৫(খবর তরঙ্গ ডটকম)- মিয়ানমারের জাতিগত সহিংসতায় উদ্বগ প্রকাশ করেছে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদ। তাদের নাগরিকত্বের স্বীকৃতি দেয়ারও আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘ।এছাড়া দেশটির আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে মানবাধিকার লংঘনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে মিয়ানমার সরকাররে প্রতি আহ্বান জানিয়েছে সংস্থাটি।সোমবার জাতিসংঘের ১৯৩ সদস্য বিশিষ্ট সাধারণ সভার ৬৭তম সাধারণ অধিবেশনে এ আহ্বান জানানো হয়।গত মাসে অনুষ্ঠিত সাধারণ অধিবেশনের তৃতীয় কমিটিতে উত্থাপিত মিয়ানমারের সহিংসতা ও মানবাধিকার বিষয়ক একটি প্রস্তাবে ঐক্যমত প্রকাশ করেছিল সদস্য দেশগুলো। পরে ভোটাভুটিতে সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করলে প্রস্তাবটি অধিবেশনে গৃহীত হয়।

জাতিসংঘের সিদ্ধান্তে বলা হয়, মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের সংখ্যালঘু রোহিঙ্গাদের পরিস্থিতি নিয়ে বিশেষ উদ্বেগ জানাচ্ছে জাতিসংঘ। তাদের পরিস্থিতির উন্নতি এবং নাগরিকত্বের অধিকারসহ মানবাধিকার রক্ষার জন্য সরকারকে পদক্ষেপ নিতে আহ্বান জানানো হচ্ছে।

গত জুন মাসে কথিত একজন বৌদ্ধ মহিলাকে ধর্ষণের অভিযোগে এ ধরনের সহিংসতা বা জাতিগত দাঙ্গা শুরু হয়। ওই ধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্ত তিন ব্যক্তির মধ্যে দুজনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর এবং অপর একজন পুলিশের হেফাজতে মারা গেছে।

ওই ঘটনার পর রাখাইন প্রদেশে একটি বাস থেকে তাবলীগ জামাতের লোকজনকে নামিয়ে অন্তত দশ ব্যক্তিকে পিটিয়ে মেরে ফেলা হয়। এরপর থেকে রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর অব্যাহতভাবে সহিংসতা চালিয়ে আসছে উগ্র বৌদ্ধরা।

জাতিসংঘের হিসেবে মিয়ানমারে কমপক্ষে ৮ লাখ রোহিঙ্গা মুসলমান রয়েছে। অষ্টম শতাব্দীতে রোহিঙ্গা মুসলমানরা তুরস্ক, পাঠান, পারস্য, বাংলা, থ্যাইল্যান্ড, মালয়েশিয়ার মত দেশ ও আশে পাশের অঞ্চল থেকে মিয়ানমারে বসতি স্থাপন করে।

কিন্তু রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর সহিংসতা শুরু হবার পর মিয়ানমারের প্রেসিডেন্ট জেনারেল থেইন সিয়েন বলেন, রোহিঙ্গারা তার দেশের নাগরিক নন, এবং তাদের মিয়ানমার থেকে অন্য কোনো দেশে বিতাড়ন এ সংকটের সমাধান হতে পারে।

তবে মিয়ানমারের সংসদ সদস্যরা বিবৃতিতে মিয়ানমারে ১৯৮২ সালে প্রণীত আইন অনুযায়ী রোহিঙ্গা মুসলমানদের দেশটির নাগরিক হিসেবে স্বীকৃতি দেয়ার দাবি জানান।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।