জমকালো ও বর্ণিল আলোচ্ছটায় নতুন বর্ষ কে স্বাগত জানালো বিশ্ববাসী - খবর তরঙ্গ
শিরোনাম :

জমকালো ও বর্ণিল আলোচ্ছটায় নতুন বর্ষ কে স্বাগত জানালো বিশ্ববাসী



নিউজ ডেস্ক, (খবর তরঙ্গ ডটকম)

জমকালো ও বর্ণিল আলোচ্ছটায় ইংরেজি নতুন বর্ষ ২০১৩ কে স্বাগত জানালো বিশ্ববাসী। পুরনোকে ভুলে নতুনকে বরণ করে নিতে উত্সামহ-উদ্দীপনার কমতি ছিল না বিশ্বের কোথাও।বিদায়ী দিনের দুঃখ বেদনা ভুলে, নতুন বছরে, নতুন আঙ্গিকে, নতুন স্বপ্ন বাস্তবায়নে সবাই নেচে-গেয়ে উচ্ছ্বল আনন্দে বরণ করে নেয় ইংরেজি নতুন এ বছরকে।বিশ্বের অন্যান্য দেশের ন্যায় নতুন এ বছরকে আমন্ত্রণ জানাতে উৎসব আয়োজনের কোনো কমতি ছিল বাংলাদেশেও। পুরনোকে পেছেনে ফেলে নতুনকে স্বাগত জানাতে বাধ ভাঙা উচ্ছ্বাস আর আনন্দের জোয়ারে মেতে ছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। কনকনে শীতের মধ্যে দল বেধে নেচে-গেয়ে বরণ করে নেয় ইংরেজি নতুন বছর।

নতুন আশা-আকাঙ্খা নিয়ে বড় ধরনের আনুষ্ঠানিকতায় আকাশে নববর্ষের আতশবাজির প্রথম বিচ্ছুরণ ঘটায় নিউজল্যান্ড। দক্ষিণ গোলার্ধের উচ্চতম নির্মাণ অকল্যান্ডের স্কাই টাওয়ার। ৩২৮ মিটার উঁচু এই টাওয়ার থেকে ছড়িয়ে পড়া আতশবাজির আলো নিউজিল্যান্ডের বাসিন্দাদের জানিয়ে দেয় এসে গেছে ২০১৩।

এদিকে প্রথমবারের মতো এবার ইংরেজি নববর্ষ পালন করছে মিয়ানমারের মানুষ। সামরিক শাসনের বেড়াজাল ছিঁড়েছে। সাধারণ মানুষের জমায়েতের ওপর থেকে উঠেছে নিষেধাজ্ঞা। ইয়াঙ্গুনের পিপলস পার্কে আবেগে-উচ্ছ্বাসে ২০১৩ কে স্বাগত জানালেন হাজারো মানুষ।নব বর্ষ উদযাপন

এছাড়া আতশবাজির আলোয় ঢেকে গেল বিশ্বের উচ্চতম টাওয়ার বুর্জ খলিফা। বর্ষবরণে মেতে উঠল দুবাই। নববর্ষে আনন্দে মাতলেন কাবুলে মোতায়েন ন্যাটোবাহিনীর সদস্যরাও।

পুরনো বছরকে বিদায় আর নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে আলোর মালায় সেজে উঠল সিডনি হারবার ব্রিজ। ভিক্টোরিয়া বন্দরে মধ্যরাতের আকাশে আট মিনিট ধরে আতশবাজির রোশনাই। ২০১৩ কে স্বাগত জানাল হংকং।

বিশ্বের দ্বিতীয় উচ্চতম বাড়ি তাইপেই একশো একে আলোর মেলা। নতুন বছরকে বরণ করে নিলেন তাইওয়ানের বাসিন্দারা। নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে টোকিওসহ দেশের বিভিন্ন ধর্মস্থানে উপস্থিত হয়েছিলেন জাপানিরা।

লেজার শোতে উদ্ভাসিত হয় তীব্র ঠাণ্ডায় জমে যাওয়া বেইজিংয়ের কুনমিং লেকে শৈল্পিক উপস্থাপনা। হাজারের বেশি মানুষের উপস্থিতিতে ২০১৩ কে বরণ করে নিল চীন। আর নববর্ষের অপেক্ষায় আছে নিউ ইয়র্কের টাইমস স্কয়ার।


পূর্বের সংবাদ