পাক-ভারত সীমান্ত উত্তেজনা সহসা সমাধান নয়

ভারত ও পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীর সীমান্তের কন্ট্রোল লাইনে প্রতিদ্বন্দ্বী দুদেশের মধ্যে উত্তেজনার রেশ ধরে যে জটিলতা সৃষ্টি হয়েছে, তা সহসাই কাটছে না বলেই মনে করা হচ্ছে।ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সালমান খুরশিদ বলেছেন, ‘আমরা আলোচনার জন্যে তাড়াহুড়োর পক্ষে নই। সমাধানের দিকে ধাবিত হতে ধীরে ধীরে আগাতে হবে।’বৃহস্পতিবার পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিনা রব্বানি খার সংকট নিরসনে আলোচনার আহ্বান জানান। এর জবাবে ভারতের এই কৌশলগত পিছুটান এই উত্তেজনা কাটিয়ে উঠতে নেতিবাচক প্রভাবই ফেলবে বলে ধারণা বিশ্লেষকদের।

সে সময় অবশ্য ভারতকে যুদ্ধবাজ বলে মন্তব্য করেছিলেন হিনা রব্বানি।

এ উত্তেজনা শুরুর পর্যায়ে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার হুমকি দেন ভারতীয় বিমান বাহিনীর প্রধান এনএকে ব্রাউনে। তিনি বলেন, পাকিস্তান যদি অব্যাহতভাবে যুদ্ধিবিরতি লঙ্ঘন করে, তাহলে ভারত ‘অন্য ব্যবস্থা’ নেয়ার কথা বিবেচনায় আনবে।

এরপর উত্তেজনাপূর্ণ কাশ্মিরের নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর বিরাজমান উত্তেজনা কমানোর জন্যে পাকিস্তানি ও ভারত ব্রিগেড কমান্ডার পর্যায়ে পতাকা বৈঠকেও বসে। পুঞ্চ সেক্টরে চাকান-দা-বাগে এই বৈঠক হয়।

ওই পতাকা বৈঠকে ভারত দুই সেনা নিহত হওয়ার বিষয়ে আলোচনা তুললে পাকিস্তান এ হত্যাকাণ্ডের কথা অস্বীকার করে। এরপর ভারতের সেনাপ্রধান জেনারেল বিক্রম সিং হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, ‘সেনা হত্যার প্রতিশোধ নেবে নয়াদিল্লি।’

সে সময় পাকিস্তানি সেনারা পরিকল্পিতভাবেই ভারতের দুই সেনাকে হত্যা করেছে দাবি করে দিল্লিতে এক সংবাদ সম্মেলনে জেনারেল সিং বলেন, ‘এ ধরনের ঘটনা ক্ষমা করা যায় না।’

বিক্রম সিং তখন বলেন, ‘সময় ও সুযোগ মতো এ ঘটনার প্রতিশোধ নেবে ভারত।’

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।