এসএনসি-লাভালিন ১০ বছর নিষিদ্ধ: বিশ্ব ব্যাংক

বুধবার বিশ্ব ব্যাংকের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এক বিবৃতিতে নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি জানানো হয়। পদ্মা সেতু প্রকল্পে দুর্নীতির অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় কানাডীয় পরামর্শক প্রতিষ্ঠান এসএনসি- লাভালিনকে ১০ বছরের জন্য নিষিদ্ধ করেছে বিশ্ব ব্যাংক। সেইসঙ্গে এসএনসি-লাভালিনের শতাধিক সহযোগী প্রতিষ্ঠানকেও একই মেয়াদের জন্য কালো তালিকাভুক্ত করা হয়েছে, যা বিশ্ব ব্যাংকের সর্বোচ্চ নিষেধাজ্ঞা।
পদ্মাসেতু প্রকল্পে বিশ্ব ব্যাংকের ১ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলার ঋণ দেয়ার কথা থাকলেও দুর্নীতি অভিযোগ নিয়ে দীর্ঘ টানাপোড়েনের পর গত জানুয়ারিতে তা আর অর্থায়ন করবে না জানায়। এই প্রকল্পের কাজ পেতে দুর্নীতির অভিযোগে এসএনসি-লাভালিনের দুই কর্মকর্তার বিচার চলছে কানাডায়। সাবেক কর্মকর্তা রমেশ শাহ ও মোহাম্মদ ইসমাইলকে কানাডার ওন্টারিওর আদালতে হাজির করা হলে বিচারক ৮-১৯ এপ্রিল প্রাথমিক শুনানির দিন ধার্য করেন।

এর আগে রয়্যাল কানাডীয় পুলিশ ২০১১ সালের ফেব্রুয়ারিতে এসএনসি-লাভালিন কর্যালয়ের অভিযান চালিয়ে কোম্পানির আন্তর্জাতিক প্রকল্প বিভাগের ভাইস-প্রেসিডেন্ট রমেশ এবং পরিচালক ইসমাইলকে গ্রেপ্তার করে। ‘করাপশন অব ফরেন অফিশিয়াল’ আইনের আওতায় তাদের বিরুদ্ধে একটি মামলা করা হয়।

পরে বিষয়টি বিশ্ব ব্যাংকের নজরে আনেন কানাডিয়ান কর্তৃপক্ষ। এরপর তারা পদ্মা সেতু প্রকল্পে অর্থায়ন স্থগিত করে দেয়। ২৯০ কোটি ডলারের এই প্রকল্পে ১২০ কোটি ডলার দেয়ার কথা ছিল বিশ্ব ব্যাংকের।

অর্থায়ন জটিলতায় প্রকল্প ঝুলে যায়। এরপর দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ তদন্তের উদ্যোগ নেয় দুর্নীতি দমন কমিশন-দুদক। রয়্যাল কানাডীয় পুলিশের একটি প্রতিনিধি দল ঢাকা সফরে দুদক কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করে গেছেন।

তবে শেষ রক্ষা হয়নি। জানুয়ারিতে পদ্মা সেতু প্রকল্পে আর বিশ্ব ব্যাংক অর্থায়ন করবে না বলে জানিয়ে দেয়। পরে বাংলাদেশ সরকারও এজন্য বিকল্প খুঁজতে থাকে। ইতোমধ্যে মালয়েশিয়ার সঙ্গে চুক্তি করেছে সরকার।


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।