সিরিয়ায় শুক্রবার রাতে মার্কিন হামলা হতে পারে !

মার্কিন প্রতিরক্ষা দফতরের উচ্চপদস্থ এক কর্মকর্তা দাবি করেছেন, সিরিয়ার বিরুদ্ধে মার্কিন হামলা আগামীকাল  শুক্রবার রাতে চালানো হতে পারে।  সিরিয়া প্রসঙ্গে বৃহস্পতিবার বৃটিশ সংসদে ভোটাভুটি হওয়ার আগ পর্যন্ত এ হামলা চালানো হবে না বলে দাবি করেছেন তিনি।

মার্কিন টিভি চ্যানেল ফক্স নিউজের বরাত দিয়ে ভয়েস অব রাশিয়া এ খবর দিয়েছে।

এতে আরো বলা হয়েছে, এ হামলায় মার্কিন নৌবাহিনী নেতৃত্ব দেবে এবং এ হামলার স্থায়িত্ব কয়েক দিন নয় বরং কয়েক ঘণ্টা হবে। এরই মধ্যে মার্কিন নৌবাহিনীর যুদ্ধ জাহাজসহ প্রয়োজনীয় সমরোপকরণ পূর্বাঞ্চলীয় ভূমধ্যসাগরে মোতায়েন করা হয়েছে।

এ খবরে আরো বলা হয়েছে, মার্কিন নৌবাহিনীর চারটি ডেস্ট্রয়ার এবং অন্তত একটি পরমাণু শক্তি চালিত ডুবোজাহাজ পূর্বাঞ্চলীয় ভূমধ্যসাগরে মোতায়েন রয়েছে।  সিরিয়ায় সেনা অভিযানের বিষয়টি ব্রিটিশ সংসদ অনুমোদন করলে ওই এলাকায় মোতায়েন  দেশটির একটি  ডুবোজাহাজও এতে অংশ নেবে।

এ সূত্রটি আরো জানিয়েছে, দূরপাল্লার মার্কিন স্টিলথ বোমারু বিমানসহ  মার্কিন বিমান বাহিনীর অস্ত্রও  এ হামলার কাজে ব্যবহার করা হবে।

এদিকে, ফক্স নিউজের সামরিক বিশ্লেষক এবং মার্কিন আর্মি ওয়ার কলেজের সাবেক কমান্ডেন্ট- (অবসরপ্রাপ্ত) মেজর জেনারেল বব স্কেলস মনে করেন, দ্রুতগতিতে অল্প সময়ের জন্য এ হামলা হবে।

তিনি বলেন, সিরিয়ার বিমান প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার নাগালের বাইরে অবস্থান করে সাগর থেকে ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র দিয়ে হামলা হতে পারে। সিরিয়ার দৃষ্টিগ্রাহ্য লক্ষ্যবস্তু যেমন কমান্ড অ্যান্ড কন্ট্রোল সেন্টার বা কয়েকটি ক্ষেপণাস্ত্র  কিংবা অস্ত্র ঘাঁটি এ হামলার লক্ষ্যবস্তু হতে পারে বলে তিনি ধারণা করেন।

এদিকে, মার্কিন নেতৃত্বাধীন ন্যাটো জোট আজ আরো পরে ব্রাসেলসে জরুরি বৈঠকে বসবে এবং এ বৈঠকের আগে কোনোভাবেই হামলার সিদ্ধান্ত নেয়া হবে না।

মার্কিন নৌ বাহিনীর প্রতিটি ডেস্ট্রয়ার একবারে ৯০টি টমাহক ক্ষেপণাস্ত্র বহন করতে পারে। প্রতিটি ক্ষেপণাস্ত্র উতক্ষেপণে সাড়ে ছয় লাখ ডলার খরচ হয়। টোমহক ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র ছোঁড়ার ক্ষেত্রে আবহাওয়া পরিস্থিতি কোনো সমস্যা হয়ে দেখা দেয় না। সূত্র: আইআরআইবি


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।